ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বিদ্রোহী গ্রুপের ধাওয়ায় ক্যাম্পাস ছাড়লেন সম্পাদক

ইবি ছাত্রলীগ

ইবি সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ দুই গ্রুপের ধাওয়াকালে অস্ত্রের মহড়া -ইনকিলাব


ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দিয়েছে পদবঞ্চিত গ্রুপেরর নেতা-কর্মীরা। গত শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বহিরাগতদের নিয়ে মহড়া দিতে আসলে তাকে ধাওয়া করে বিরোধী গ্রুপ। এতে প্রাণ ভয়ে ক্যাম্পাস থেকে পলায়ন করে রাকিবুল ইসলাম রাকিব।
গত কয়েকদিন ধরে ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদক গ্রুপের সাথে পদবঞ্চিতদের মাঝে উত্তেজনা চলছে। সাধারণ সম্পাদকের নেতা হওয়ার অডিও ফাঁসের ঘটনায় তাকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে পদবঞ্চিত গ্রুপ। গত দুদিন ধরে উভয় গ্রুপই সংঘর্ষের প্রস্তুতি নিচ্ছিল বলে গোপন সূত্র নিশ্চিত করেছে। গত শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বহিরাগত ক্যাডারদের নিয়ে জিয়া মোড়ে অবস্থান নেয় রাকিব। এসময় তাদের সাথে বেশ কিছু কর্মীকে অস্ত্রসহ বিশেষ ব্যাগ বহন করতে দেখা যায়।

এসময় লালন শাহ হল গেট দিয়ে আরও কয়েকজন বহিরাগত ক্যাম্পাসে ঢুকে। এ সংবাদে বঙ্গবন্ধু হলসহ বিভিন্ন পয়েন্টে গচ্ছিত হতে থাকে পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। সাড়ে ৫টার দিকে বঙ্গবন্ধু হল থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে পদবঞ্চিতরা। এতে সম্পাদক তার কয়েকজন কর্মী নিয়ে মেইন গেটের দিকে এগুতে থাকে। এসময় বহিরাগতসহ অন্য কর্মীরা দিগি¦দিক ছুটে পলায়ন করে।

পদবঞ্চিতরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে মেইন গেটে রাকিবকে ধাওয়া করে। এসময় তাদের সাথে রাম দা, চাইনিজ কুড়াল, হকিসহ লাঠি-সোঠা তিন শাতাধিক কর্মী অংশ নেয়। ধাওয়া খেয়ে রাকিব মেইন গেটের পাশে পালিয়ে গিয়ে এক বাড়িতে আশ্রয় নেয়। তাকে খুঁজে না পেয়ে উত্তেজিত কর্মীরা ক্যাম্পাসে ফিরে আসে। পরে তারা লালন শাহ ও শেখ রাসেল হলে সম্পাদক ও তার কর্মীদের খুঁজতে তল্লাশী চালায়। এতে পুরো ক্যাম্পাসে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে তারা বঙ্গবন্ধু হলে ফিরে গিয়ে আবারো কর্মীদের নিয়ে জিয়া মোড়ে অবস্থান নেয়। সন্ধ্যা থেকে ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

হামলা নিয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন,‘ কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে ক্যাম্পাসে গিয়েছিলাম। পরে আমি ক্যাম্পাস থেকে চলে এসেছি।’ এ বিষয়ে পদবঞ্চিত গ্রæপের নেতা শিশির ইসলাম বাবু বলেন, ‘টাকায় নেতা হওয়া রাকিব বহিরাগতদের নিয়ে সে ক্যাম্পাসে এসেছিল। তাই আমরা তাকে প্রতিহত করেছি। ক্যাম্পাসের ছাত্রলীগ কর্মীরা তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
Ŕj Ráhmâņ ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:২৯ এএম says : 0
Good joob
Total Reply(0)
Durul Huda ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:২৯ এএম says : 0
ato kichu howar por jodi chatro rajniti nisaido na hoy toke bongobondhur sonar bangla kora somvab na.....jara student theke asob sike tara desh ar seba kivabe korbe
Total Reply(0)
Shamima Rahman ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:২৯ এএম says : 0
বাহ ! এই না হলে সোনার দল
Total Reply(0)
মহররম আলী ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩১ এএম says : 0
এ আর নতুন কী। আধিপত্যের লড়াই।
Total Reply(0)
পলি আহমেদ ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৩১ এএম says : 0
এতো ওদের রুটিন ওয়ার্ক। ভাত না খেলেও এটা চলবে....
Total Reply(0)
Yourchoice51 ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৮:৩২ এএম says : 0
শাবাশ! ইসলামী বিশবিদ্যালয়ের মান তোমরাই সমুন্নত রাখছো; তাই না। এসব কুলাংগারদেরকে কে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করলো? বিশ্ববিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন করে 'অনৈসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়' করা দরকার।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন