সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

নাজিরপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে পৃথক দুই মামলা

নাজিরপুর (পিরোজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৫ আগস্ট, ২০২১, ৪:৪১ পিএম

পিরোজপুরে নাজিরপুরে শাঁখারীকাঠী ইউনিয়নের বাঘাজোরা নামক গ্রামে এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে(১৪) ধর্ষনের অভিযোগে মেয়েটির খালাত ভাই আল-আমিন হাওলাদার (১৭) ও মামাত ভাই মেরাজুল ইসলাম ডাকুয়া(২১) এর নামে পৃথক-পৃথক দুইটি মামলা দায়ের হয়েছে। ঐ মাদ্রাসা ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে গত মঙ্গলবার ৩ আগষ্ট রাতে নাজিরপুর থানায় ধর্ষন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে এ মামলা দুটি দায়ের করেন বলে নাজিরপুর থাানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আশ্রাফুজ্জামান জানান। উপজেলার শাঁখারীকাঠী ইউনিয়নের বাঘাজোরা গ্রামের আবুল বাশার হাওলাদারের ছেলে আল-আমিন ডাকুয়া ও একই গ্রামের মোস্তফা ডাকুয়ার ছেলে মেরাজুল ইসলাম পৃথক পৃথক সময়ে ঐ মাদ্রসার ছাত্রীকে ধর্ষন করে বলে এজাহারে উল্লেখ রয়েছে। ঐ মাদ্রাসার ছাত্রী বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলায় তার বাড়ী মূলত সে নাজিরপুর উপজেলার বাঘাজোড়া গ্রামে নানা বাড়ীতে থাকে। দায়ের হওয়া মামলা ও ভূক্তভোগীর পিতার দেওয়ার তথ্য মতে জানা যায় মাদ্রসা ছাত্রী পিতা মাতা কাজের জন্য খুলনায় থাকেন আর এজন্য ঐ মাদ্রাসার ছাত্রীকে লেখাপড়ার জন্য নানা বাড়ীতে রেখে স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় পড়ানো হতো। এ সময়ে খালাতো ভাই প্রেমের অভিনয় করে। গত ৭ এপ্রিল সহ বিভিন্ন সময় ধর্ষন করে ঐ মাদ্রাসার ছাত্রীকে আবার ঐ ছাত্রীর মামাতো ভাই গত ২২শে মে জোর করে ধর্ষন করে। সম্প্রতি পিতা মাতা বাড়ীতে এলে মাদ্রাসার ছাত্রী বিষয়টি তাদের কে জানালে নাজিরপুর থানায় এসে ঐ দুই ধর্ষকের বিরুদ্ধে আলাদা আলাদা দুটি মামলা দায়ের করেন। নাজিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আশ্রাফুজ্জামান জানান ধর্ষকরা ভূক্তভুগি মাদ্রাসার ছাত্রীর খালাতো ভাই ও মামাতো ভাই হওয়ায় বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করা হয়েছিল। ভূক্তভুগি মাদ্রসার ছাত্রীকে মেডিক্যাল পরিক্ষার জন্য পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের জোড় চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন