রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২২ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

ইসলামী জীবন

অনুপম আদর্শের প্রতীক মহানবী (সা.)

ড. আবদুল আলীম তালুকদার | প্রকাশের সময় : ১৫ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০৭ এএম

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব, অনুপম আদর্শের প্রতীক ইসলামের নবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তুফা (সা.) কে মহান আল্লাহ্ সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্য রহমতস্বরূপ প্রেরণ করেছেন এবং আল্লাহ্ তাআলা নিজেই তাঁকে ন্যায় ও আদর্শভিত্তিক শিক্ষা প্রদান করেছেন। তাইতো কুরআনুল কারীমের সুরা আল আহ্যাব এর ২১ নং আয়াতে আল্লাহ্ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের জন্য রাসূল (স.)-এর জীবনে রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ।’ এছাড়াও সুরা আল আ’রাফ এর ১৫৮ নং আয়াতে আল্লাহ্ তাআলা নবী মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে আরো ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই আমি (নবী মুহাম্মদ) তোমাদের সবার জন্য আল্লাহর রাসুল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছি।’ তাছাড়াও রাসূল (সা.)-এর নৈতিক চরিত্রের সর্বোত্তম সংজ্ঞা প্রদান করে উম্মুল মু’মিনিন হযরত আয়িশা (রা.) বলেছেন, ‘কুরআনই ছিলো তাঁর চরিত্র।’

জগত বিখ্যাত লেখক মাইকেল এইচ হার্ট তার ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টিকারী ‘দ্য হান্ড্রেড’ গ্রন্থে মহানবী (সা.) কে স্থান দিয়েছেন পৃথিবীর সর্বকালের সকল মহামনীষীদের উপরে। তাছাড়া ভিন্ন ধর্মাবলম্বী অনেক ঐতিহাসিকরাও অকপটে স্বীকার করেছেন যে মুহাম্মদ মোস্তুফা (সা.) সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব। চরম বিরোধী প্রতিপক্ষ আবু সুফিয়ান নিজেই সম্রাট হিরাক্লিয়াসের সম্মুখে নবি (সা.)-এর সততা, আমানতদারীতা ও সচ্চরিত্রতার উচ্ছসিত প্রশংসা করেছেন। মহানবী (সা.)-এর স্বভাব-চরিত্র সম্পর্কে স্বয়ং আল্লাহ্ পাক সূরা কালামের ৪ নং আয়াতে ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই আপনি সুমহান চরিত্রের অধিকারী।’
মহানবী (সা.) তাঁর জীবনের সর্বক্ষেত্রে মহাগ্রন্থ আল কুরআনের বিধি-বিধান বাস্তবায়ন করে গোটা বিশ্ববাসীর সামনে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। হযরত উক্বা ইবনে আমের (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে তিনি বলেন, ‘যে তোমার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে, তুমি তার সাথে সম্পর্ক স্থাপন করো। তোমার প্রতি যে যুলুম করে, তুমি তাকে ক্ষমা করে দাও। তোমাকে যে বঞ্চিত করে, তুমি তাকে প্রদান করো। (মুসনাদে আহমদ: ১৭২১২)

মহান আল্লাহ্ নিজেই তাঁর বান্দাদের উৎসাহিত করেছেন তাঁর প্রিয় রাসূলকে আগ্রহচিত্তে অনুসরণ ও মনে-প্রাণে ভালোবাসার জন্য। তাইতো তিনি সুরা আলে ইমরানের ৩১ নং আয়াতে বলেন, ‘হে রাসূল, আপনি বলে দিন তোমরা যদি আল্লাহর ভালোবাসা চাও তাহলে আমাকে অনুসরণ করো; তবেই আল্লাহ তোমাদের ভালোবাসবেন।’
নবী (সা) এ নশ্বর ধরাতে আগমন করেছেন মানবজাতিকে সচ্চরিত্রবান হওয়ার অনুশীলনে অভ্যস্ত করে তোলার লক্ষ্যে। এ প্রসঙ্গে হজরত আবু হুরায়রা (রা.) হতে হাদিসটি বর্ণিত। নবি (সা.) বলেছেন, ‘আমাকে সচ্চরিত্রের পূর্ণতা সাধনের নিমিত্তেই প্রেরণ করা হয়েছে।’ [সহিহ বুখারি (আদাবুল মুফরাদ): ২৭৩]
মহানবী (সা.) এমন একজন আদর্শ মহামানব ছিলেন যার উন্নত নৈতিক চরিত্রমাধুর্যতা, সততা, বিশ্বস্ততা সম্পর্কে তৎকালীন মক্কার কুরাইশরা এমনকি চিরশত্রু মুশরিকরাও কোনো প্রকার সন্দিহান ছিলেন না। বাল্যকালেই তো তিনি কুরাইশদের আস্থা অর্জন করেছিলেন তাঁর সততা, অসমসাহসিকতা, বিনয়-নম্রতা, বিশ্বস্ততা, ধৈর্যশীলতা, অকল্পনীয় ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিভঙ্গি ও মহানুভবতার মতো বিরল চারিত্রিক মাধুর্যতা দিয়ে। আর তাঁর এসব প্রশংসনীয় গুণাবলিতে মুগ্ধ হয়ে কুরাইশগণ তাঁকে ‘আল আমিন’ উপাধিতে ভূষিত করেন।

নবী (সা.) শৈশবকাল থেকেই অত্যন্ত লজ্জাশীল ছিলেন। এ মর্মে হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রা.) বলেন, ঘরের ভিতরে অবস্থানকারিনী কুমারী মেয়ের চেয়েও রাসূল (সা.) বেশি লজ্জাশীল ছিলেন। যখন তিনি কোনো কিছু দেখে অপছন্দ করতেন তখন তার চেহারা দেখেই আমরা বুঝতে পারতাম। (সহিহ বুখারি: ৬১০২)

হযরত হুসাইন ইবনে আলী (রা.) বলেন, আমি আমার পিতাকে রাসূল (সা.)-এর সঙ্গীদের ব্যাপারে তাঁর আচরণ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, রাসূল (সা.) সদা হাস্যোজ্জ্বল ও অতি বিনয়ী, নরম-কোমল স্বভাবের অধিকারী ছিলেন। তিনি কখনো অট্টহাসি হাসতেন না। সর্বদা তাকওয়া অবলম্বন করতেন। তাঁকে কখনই কারো সাথে রূঢ় আচরণ করতে দেখিনি। তিনি উচ্চস্বরে কথা বলতেন না। মৃদু স্বরে অত্যন্ত মার্জিত ভাষায় কথা বলতেন। তবে তাঁর মধ্যে ভীরুতা ও কাপুরুষতা ছিল না। তাঁর স্বভাব-চরিত্রে কখনো অন্যের দোষ খুঁজে বেড়ানো বা কাউকে কোনো বিষয়ে অন্যায়ভাবে দোষারোপ করতে দেখিনি। কারো সাথে ওয়াদা করলে তা সর্বতোভাবে পালন করতেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন