শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১ আষাঢ় ১৪২৯, ২৪ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সাধারণ ভিত্তি প্রয়োজন মুসলিম বিশ্বের

৬০ কোটি ৬ লাখ ৩২ হাজার কোটি টাকার হালাল অর্থনীতি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ নভেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

বিশ্ব হালাল অর্থনীতি, যা ২০১৭ সালে যা ছিল ৪০ লাখ কোটি ডলার, এখন তা ৭০ লাখ কোটি ডলারে (বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ৬০ কোটি ৬ লাখ ৩২ হাজার কোটি টাকা) পৌঁছেছে। বৃহস্পতিবার অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) ৮ম হালাল শীর্ষ সম্মেলনের সাথে একত্রে আয়োজিত ৭ম বিশ্ব হালাল সম্মেলনের সময় তুরস্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফুয়াত ওকতে এ তথ্য জানিয়েছেন।

ওকতে বলেন, শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী ২০টিরও বেশি দেশের প্রায় ৬০ জন বক্তা এবং ৩৫টি দেশের ৪০০টি কোম্পানি খাদ্য, প্রসাধনী, ওষুধ, রসায়ন, টেক্সটাইল, পর্যটন এবং প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন সেক্টরে কাজ করছে। কোভিড-১৯ মহামারি সত্ত্বেও, যারা হালাল পণ্য এবং পরিষেবাগুলোতে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে এই পণ্যগুলো, বিশেষ করে হালাল খাবার, পছন্দের কারণ হল ইসলামের প্রয়োজনীয়তা; যাইহোক, অমুসলিমরাও বেশ কিছু কারণে এই জাতীয় পণ্যগুলোতে আগ্রহী, যার মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর ও পরিষ্কার হওয়ার মতো কারণ। বর্তমানে সবচেয়ে বড় হালাল-পণ্য উৎপাদনকারী দেশগুলো হলো ব্রাজিল, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স, জার্মানি এবং নিউজিল্যান্ডের মতো অমুসলিম দেশ। এই তথ্য জানিয়ে ওকতে বলেন, খাদ্যের নিরাপত্তা এবং হালাল বৈশিষ্ট্য নিশ্চিত করার জন্য অধ্যয়নের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে মালয়েশিয়া বা ইন্দোনেশিয়ার মতো দূরপ্রাচ্যের দেশগুলোতে শিল্পটি ঘটেছে এবং তুরস্কের উদ্যোগে এটি একটি ভিন্ন গতি পেয়েছে। ‘ইসলামিক কান্ট্রিস স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড মেট্রোলজি ইনস্টিটিউট (এসএমআইআইসি) আমাদের দেশের নেতৃত্বে ইস্তাম্বুলে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং এর কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও, এসএমআইআইসি মান অনুযায়ী পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে, আমরা তিন বছর আগে আমাদের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে হালাল অ্যাক্রিডিটেশন এজেন্সি (এইচএকে) প্রতিষ্ঠা করেছি,’ ওকতে বলেন, সংস্থাটি সারা বিশ্ব থেকে প্রাপ্ত আবেদনগুলোকে মূল্যায়ন করেছে এবং সনদ দিয়েছে। স্বীকৃতির গ্যারান্টির অধীনে ৬৪০ টিরও বেশি হালাল প্রশংসাপত্র দেওয়া হয়েছে। এইচএকে এবং এসএমআইআইসি-এর মধ্যে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকের ফলস্বরূপ, এইচএকে একটি প্রশিক্ষণ বেস হয়ে উঠেছে যা বিশ্বব্যাপী বৈধতার সাথে প্রশিক্ষণ প্রদান করে। ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, আজ অবধি এইচএকে দ্বারা সংগঠিত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে, ‘আমরা ২০ টিরও বেশি দেশের প্রায় ৩০০ শিল্প পেশাদারদের দক্ষতা প্রদান করেছি এবং আমরা ধীরগতি না করে এই প্রশিক্ষণগুলো চালিয়ে যাচ্ছি,’ তিনি উল্লেখ করেছেন, তারা সমস্ত মুসলিমদের নিশ্চিতয়তা দেয় যে, তারা যে পণ্য এবং পরিষেবাগুলো কিনেছে তা হালাল কিনা তা নিয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই।

যাইহোক, ওকতে আরও বলেন, ‘ইসলামী বিশ্বের এখন হালাল বিষয়বস্তু, প্রক্রিয়া এবং পরিষেবার ক্ষেত্রে একটি সাধারণ ভাষায় কথা বলতে সক্ষম হওয়া উচিত।’ তিনি বলেন, ‘হালাল অর্থনীতিতে অবদান রাখার জন্য আমরা একটি সাধারণ ভিত্তিতে মিলিত হতে পারি এবং একসাথে কাজ করতে পারি।’ সূত্র : ডেইলি সাবাহ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
M A Islam ৩০ নভেম্বর, ২০২১, ৯:৩৯ পিএম says : 0
"বর্তমানে সবচেয়ে বড় হালাল-পণ্য উৎপাদনকারী দেশগুলো হলো ব্রাজিল, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স, জার্মানি এবং নিউজিল্যান্ডের মতো অমুসলিম দেশ" এদের মূল ‍ঊদ্দেশ্য টাকা ( বাজার ধরা )
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps