রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯, ১৩ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

জাতীয় সংবাদ

পরীক্ষার হল থেকে ছাত্রীকে নিয়ে গেল ছাত্রলীগ নেতা

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে পরীক্ষার হল থেকে এক ছাত্রীকে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা ইকবাল হোসেন উপজেলার সফর আলী ভূঁইয়া কলেজের এজিএস। হল থেকে নিয়ে যাওয়া শিক্ষার্থীর নাম আরিফা আক্তার (১৯)। সে চলতি এইচএসসি পরীক্ষার্থী। গতকাল মঙ্গলবার সকালে উপজেলার রোকন উদ্দিন মোল্লা গার্লস ডিগ্রী কলেজে এ ঘটনা ঘটে। আরিফা ওই হলে পরীক্ষা দিতে আসেন। পরীক্ষা শুরুর আগেই ছাত্রলীগ নেতা ইকবাল তাকে নিয়ে চলে যান। আরিফা উপজেলার হাইজাদি ইউনিয়নের আনোয়ার হোসেন ও ফিরোজা বেগমের মেয়ে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মঙ্গলবার সকালে ছোট বোনকে নিয়ে আরিফা পরীক্ষা দিতে হলে আসেন। তার ছোট বোনও তার সঙ্গে পরীক্ষা দিচ্ছিল। পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ আগে ছাত্রলীগ নেতা ইকবাল হোসেন হলে প্রবেশ করেন এবং কথা আছে বলে আরিফাকে হল থেকে ডেকে নেন। পরে তারা সবার সামনে দিয়েই হল ছেড়ে চলে যান। খবর পেয়ে পুলিশ হলে ছুটে আসেন।

রোকন উদ্দিন মোল্লা গার্লস ডিগ্রি কলেজের প্রিন্সিপাল আক্তারুজ্জামান বলেন, কেউ হল থেকে বেরিয়ে গেছে বা নিয়ে যাওয়া হয়েছে এমনটা তিনি জানেন না। তবে মঙ্গলবার একজন ছাত্রী পরীক্ষায় অনুপস্থিত ছিলেন।
আড়াইহাজার থানা ছাত্রলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম শরীফ বলেন, ইকবালের সঙ্গে আরিফার প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। গত কয়েকমাস আগে ইকবালের সঙ্গে আরিফার বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আমরা ক’জন তার বাড়ি গিয়েছিলাম। ওই সময় আরিফার মা জানিয়েছিলেন যে, তার বাবা আনোয়ার হোসেন মালয়েশিয়া আছেন। ৪ ডিসেম্বর দেশে ফিরবেন। এরপর তিনি এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিতে পারবেন। কিন্তু এর আগেই আরিফার মা অন্যত্র তার বিয়ে ঠিক করায় তারা স্বেচ্ছায় একে অপরের সঙ্গে চলে গেছেন।

আড়াইহাজার থানার উপ পরিদর্শক সুশান্ত বলেন, খবর পেয়ে আমরা রোকন উদ্দিন মোল্লা কলেজে যাই। সেখানে মেয়েটির মা’ও আসেন। এরকিছু সময় পরেই মেয়েটি তার মাকে ফোন করে। ফোন করে সে জানায়, তাকে কেউ অপহরণ করেনি। সে স্বেচ্ছায় ইকবালের সঙ্গে চলে এসেছে। তিন মাস আগে তাদের বিয়ে হয়ে গেছে।
এসআই সুশান্ত আরো জানান, মেয়েটির মা নিজেই নিশ্চিত করেছেন যে মেয়ের বয়স ১৯। তাই সে নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়ার অধিকার রাখে। মেয়েটির মা ফিরোজা বেগম বলেন, মেয়েকে আমি ফোনে অনুরোধ করেছিলাম যেন ফিরে এসে পরীক্ষায় অংশ নেয়। কিন্তু মেয়ে তা শুনেনি।
আড়াইহাজার থানার ওসি আজিজুল হক হাওলাদার জানান, সন্ধ্যা পর্যন্ত মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ দেয়নি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন