ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

চবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ মে, ২০১৮, ৯:৩৩ পিএম

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত প্রবন্ধে বিতর্কিত তথ্য উপস্থাপনের অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সমাজতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আবু সালেহ মো. নোমানের আদালতে ফটিকছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক আসাদুজ্জামান তানভীর মামলাটি দায়ের করেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী আজহারুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন ‘আদালত শিক্ষক আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গ্রহণ করে চকবাজার থানার ওসিকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।’

অভিযুক্ত শিক্ষক আনোয়ার হোসেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফান চৌধুরী হত্যা মামলার আসামি। ওই মামলায় দুই মাস আগে তিনি কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, বাদী গত ৬ মে চকবাজার এলাকায় হোটেল জামানের সামনে ভাসমান পত্রিকা বিক্রেতার কাছে থাকা দৈনিক ভোরের কাগজ পত্রিকার শেষ পাতায়, ‘মুক্তিযুদ্ধ হিন্দু-মুসলিম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, বিতর্কিত চবি শিক্ষক আনোয়ারের গবেষণায় বঙ্গবন্ধুকেও কটূক্তি’ শিরোনামের সংবাদ দেখতে পান। সংবাদ পড়ে বাদী মর্মাহত হন এবং বিভিন্নভাবে আসামির খবরাখবর নিয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ২০১৭ সালে প্রকাশিত গ্লোবাল জার্নাল অব হিউম্যান সোশ্যাল সায়েন্স জার্নালে ‘ধর্মীয় রাজনীতি এবং বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, একটি চলমান সঙ্কট’ শিরোনামের প্রবন্ধ লেখেন অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন।

বাদী অভিযোগ আনেন, ওই প্রবন্ধে আনোয়ার হোসেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আওয়ামী লীগ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে আপত্তিকর ও মানহানিকর বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন।

মামলার এজাহারে বাদী দাবি করেন, আনোয়ার হোসেন তার লেখায় উল্লেখ করেছেন এক সময়ের নিরপেক্ষ দল বর্তমানে আওয়ামী লীগ সাম্প্রদায়িক দলে পরিণত হয়েছে।

এজাহারে আরও উল্লেখ করা হয়, প্রকাশিত প্রবন্ধে একাধিকাবার শেখ মুজিবুর রহমানের নাম উল্লেখ করা হলেও একবারও তিনি জাতির জনক কিংবা বঙ্গবন্ধু শব্দটি ব্যবহার করেননি। এতে জাতির জনকের প্রতি আনোয়ার হোসেনের তাচ্ছিল্য প্রকাশ পেয়েছে। এছাড়া, মুক্তিযুদ্ধকে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা বলে প্রবন্ধে উল্লেখ করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন