ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মীরসরাইয়ে মেয়রের প্রভাবে বিএনপি নেতার নামে রাস্তা দখল: বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

মীরসরাই (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ৪:৩২ পিএম

মীরসরাই উপজেলার বারইয়াহাট পৌরসভায় অন্যের জায়গা দখল করে বিএনপির নেতার নামে রাস্তা দখল ও উন্নয়ন বরাদ্ধ নিয়ে সেখানে জোরপূর্বক সিসি ঢালাইয়ের চেষ্টাকালে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে এলাকাবাসী। অবশেষে গ্রামবাসীর তোপের মুখে মেয়র সেখানে অন্যায়ভাবে প্রদানকরা বরাদ্ধকৃত কাজ ও স্থগিত রাখে অবশেষে। স্থানীয় এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্থগনদের অভিযোগে জানা যায় বারইয়াহাট পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের বদিউল আলম কাজী বাড়ীর পার্শ্বে কিছু অস্থায়ী বসতিগনের জন্য উক্ত বাড়ী কাজী বদিউল মাওলা নিজের জমির পাশ দিয়ে হাটার রাস্তা করে দেন। একই পথ দিয়ে স্থানীয় বিএনপি নেতা ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি নাজিম উদ্দিন ও তার স্ত্রী পৌর কাউন্সিলর শাহনাজ বেগম চলাচল করেন। উক্ত বিএনপি নেতা নাজিম উদ্দিন কৌশলে মেয়র নিজাম উদ্দিনকে ম্যানেজ করে উক্ত চলাচলের পথ অন্যের জমিতে স্বত্বে ও জমির মালিকের অনুমতি না নিয়ে নিজের নামে রাস্তার নাম উল্লেখ করে ৪০০ ফুট দীর্ঘ সিসি ঢালাই অনুমোদন করিয়ে সম্প্রতি এর কাজ শুরু করে। স্থানীয় লোকজন এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ জানালে উন্নয়ন কাজ সাময়িকভাবে স্থগিত করেন পৌর মেয়র।

শুক্রবার এই বিষয়ে স্থানীয় গনমাধ্যমকর্মীদের বিষয়টি অবহিত করে সরেজমিনে বৃত্তান্ত ব্যাখ্যা করেন উক্ত চলাচলের পথের জায়গার মালিক কাজী বদিউল মাওলা। তিনি জানান উক্ত জমি আমার পৈত্রিক। আমার দাদা বা বাবার নামে রাস্তার নামকরন করতে পারতো। আমাদের জমিতে আমাদের অনুমতি না নিয়েই বিএনপি নেতার নামে নামকরন করে সেখানে উন্নয়ন বরাদ্ধ দিলো বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের দায়িত্বরত ব্যক্তি তথা মেয়র। বিষয়টিকে তিনি স্ববিরোধিতা ও অতি রহস্যজনক বলেই অবিহিত করেন। তিনি এই বিষয়ে আইনপ্রয়োকারী কর্তৃপক্ষ, ভূমি প্রশাসন, জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের দৃষ্টি আকর্ষন করেন। একই পথ দিয়ে চলাচলকারী ভুক্তভোগী গৃহবধু খালেদা আক্তার (৩৫) বলে নাজিম উদ্দিন জোরপূর্ব রাস্তার কাজ করাতে আমার ঘরের বেড়া ঠেলে ফেলে দেয়। বিএনপি নেতা হয়ে এমন প্রভাব অনেককে ভাবিয়ে তুলে। এই বিষয়ে অভিযুক্ত নাজিম উদ্দিন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন রাস্তাটি চলাচলের জন্য আমরা উন্নয়ন কাজ করাতে চাইছিলাম, তবে জমির মালিকানা তাঁদের বলে স্বীকার করে তাঁদের কাছে কৃতজ্ঞতা এবং রাস্তার নামের নামকরনের বিষয়ে ও তিনি কিছু জানেন না বলেন। এই বিষয়ে পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি রাস্তার নামকরনের জমির মালিকের নামে নামকরণের ব্যতিরেকে আর কারো নাম থাকলে তাহা সংশোধন করা যেতে পারে বলে জানান। আবার বিএনপি নেতার পক্ষে অন্যের জমিতে তাঁর জোর পূর্বক উন্নয়ন বরাদ্ধ দেয়ার বিষয়ে ও তিনি বলেন বিষয়টি ভুলবুঝাবুঝির কারনে উত্তেজনা সৃষ্টি হতে পারে তবে তিনি শীঘ্রই পুরো সংকটের অবসান করার চেষ্টা চালাচ্ছেন বলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন