ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯, ০১ শ্রাবণ ১৪২৬, ১২ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

স্বাস্থ্য

ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ

ডাঃ শাহজাদা সেলিম | প্রকাশের সময় : ২১ জুন, ২০১৯, ১২:১০ এএম

ডায়াবেটিস বাংলাদেশেতো বটেই, পৃথিবীর সকল দেশের মানুষের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রোগ। উচ্চ রক্তচাপও কোটি কোটি মানুষের রোগ-চিকিৎসার তালিকার উপরের দিকে অবস্থানকারী একটি স্বাস্থ্য সমস্যা। আবার, যাদের ডায়াবেটিস নেই তাদের তুলনায় যাদের ডায়াবেটিস তাদের মধ্যে উচ্চ রক্তচাপ দেখা যায় বেশি। এমন দেখা যায় পূর্ণবয়স্ক তিন জন ডায়াবেটিকের মধ্যে দুই জনের থাকে উচ্চ রক্তচাপ। ডায়াবেটিস থাকলে উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার ঝুঁকিও দ্বিগুণ। চিকিৎসা না হলে উচ্চ রক্তচাপ থেকে হতে পারে হার্ট এ্যাটাক ও স্ট্রোক।

ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপের ক্ষেত্রে দৈহিক স্থুলতা, নিয়মিত অতিরিক্ত চর্বি-লবনযুক্ত খাদ্য গ্রহণ, শারীরিক শ্রমহীন জীবন যাপন এবং দীর্ঘ দিনের প্রদাহ সংযুক্ত থাকতে পারে।
বস্তুত: যে ব্যক্তির ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ দুটোই আছে, ডায়াবেটিস নেই এমন লোকের তুলনায় হৃদরোগ, প্রধানত হার্ট অ্যাটাক ও রক্ত নালীর সরু হয়ে যাওয়া জনিত সমস্যা; স্ট্রোক ইত্যাদির ঝুঁকি প্রায় চারগুণ। এদের চোখ ও কিডনি সমস্যার ঝুঁকিও থাকে বহুগুন।
প্রাপ্তবয়স্ক ডায়াবেটিক রোগীর ৭৩% শতাংশের রক্তচাপ ১৪০/৯০ এর বেশি এবং উচ্চ রক্তচাপের জন্য ব্যবহার করেন ওষুধ।
ডায়াবেটিস রোগীদের উচ্চ রক্তচাপের এমন ঝুঁকি থাকার জন্য, আমেরিকান ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেল্থ সাধারণ লোকের লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে নিচে রেখেছেন রক্তচাপের লক্ষ্যমাত্রা। ১৩০/৯০ মিলি মিটার পারদ চাপের নিচে।
ডায়াবেটিসের রোগীর যে কোন চিকিৎসার ক্ষেত্রেই রক্তের গøুকোজের আদর্শ মাত্রা বজায় রাখার গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি। রক্তের গ্øুকোজের আদর্শ মাত্রা রোগীর বয়স, লিঙ্গ, শারীরিক শ্রম, ডায়াবেটিসের জটিলতা ও অন্য রোগের উপস্থিতির উপর নিভর্র করে নিরোপিত হয়। ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ দ’ুটোই লাইফ স্টাইল সম্পৃক্ত রোগ; তাই এ দুটি রোগের চিকিৎসাতেই জীবন যাপন পদ্ধতির উন্নতি অত্যাবশ্যক। এর কেন্দ্রে থাকবে আদর্শ খাদ্য গ্রহণ পদ্ধতি এবং নিয়মিত-পরিমিত শারীরিক শ্রম। এরপর রোগের চাহিদা ও দীর্ঘস্থায়ী জটিলতার ঝুঁকি কমাবার লক্ষ্য নিয়ে প্রয়োজন মাফিক ওষুধ সেবন। কিন্তু সকল ক্ষেত্রেই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা ও তা বজায় আছে কিনা
তা ফলো-আপ করা জরুরী। উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের ক্ষেত্রে ফলো-আপ করতে বাড়িতে নির্দিষ্ট সময়ে চিকিৎসকের পরার্মশ মোতাবেক রক্তচাপ মাপা ও প্রয়োজন ভিত্তিক চিকিৎসকের পরার্মশ নেওয়া উচিত।
উচ্চ রক্তচাপ অনেক সময় নি:শব্দ সমস্যা। ডাক্তার রক্তচাপ চেক্ না করলে তা জানাও যায় না। আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশনের পরামর্শ; প্রতিবার ডাক্তারের ভিজিটের সময় রক্তচাপ মেপে দেখা উচিত বা বছরে অন্তত: ৩-৪ বার মাপানো উচিত। কারো কারো রক্তচাপ বেশ উঁচুতে উঠলে কিছু উপসর্গ হতে পারে। যেমন- মাধা ধরা, মাথা ঝিম ঝিম করা, ঝাপসা দেখা।
উচ্চ রক্তচাপ কি প্রতিরোধ করা যায় ?
আমেরিকান ডায়াবেটিস এসোসিয়েশনের পরামর্শ হলো- নুন খাওয়া কমানো, মানসিক চাপ কমানোর কাজ কর্মে নিজেকে নিয়োজিত করা, নিয়মিত ব্যায়াম করা, স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা, মদ্যপান কমানো (আমার পরামর্শ; বর্জন করা), ধূমপান করে থাকলে বন্ধ করা এবং অন্যের ধূমপানের ধোয়া থেকে দূরে থাকা এবং রক্তচাপ মনিটর করা।
কিভাবে হয় চিকিৎসা
জীবন-যাত্রার ধরন পরিবর্তন এবং ওষুধ দুটোই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। ব্যক্তিভেদে চিকিৎসা হয় ভিন্ন ভিন্ন। ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করা নিজের জন্য যথাযথ চিকিৎসা পরিকল্পনা ঠিক করে নিতে হবে।
জীবন-যাত্রার ধরন পরিবর্তন
জীবন-যাত্রার ধরনে পরিবর্তন আনলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ হয়, নিয়ন্ত্রণে আসে রক্তের গøুকোজ ও রক্তের লিপিড কোলেস্টেরল মান।
আদর্শ খাদ্য পদ্ধতি
নিয়মিত কম ক্যালরিযুক্ত ফল খাওয়া
পর্যাপ্ত শাক-সবজি খাওয়া [আলু সবজি হিসেবে বিবেচিত হবে না]।
লবন খাওয়া যতটা সম্ভব কমাতে হবে।
রান্নায় তেল কমাতে হবে, প্রাণীজ চর্বি খাওয়া কমাতে হবে।
কাজু বাদাম, টমেটো উপকারি।
সাদা মাংস, মোরগের মাংস, মাছ ভাল। খাসি, গরুর মাংস বর্জন করা ভাল। খেতে হলেও কদাচিৎ।
কম তেলে রান্না, ভাপে সিদ্ধ, সেঁকা, রোস্ট করা, আগুনে ঝলসানো, গ্রীল করা মাংস।
প্রস্তুত খাদ্যের ফুড লেবেল চেককরা এবং প্রতি সার্ভিং-এ ৪০০ মিলিগ্রামের নুনের কম গ্রহণ।
উচ্চতা অনুসারে বয়স ও লিঙ্গ ভিত্তিক কাংখিত দৈহিক ওজন বজায় রাখতে হবে। যাদের দৈহিক স্থ’ূলতা আছে তাদের ক্ষেত্র ঝুঁকি অনেক বেশি। তাই দ্রুতই ওজন হ্রাস করতে হবে।
নিয়মিত উপযোগী শারীরিক শ্রম সম্পাদন করতে হবে।
তামাক ও তামাকজাত নেশা বর্জন করতে হবে [ধূমপান, জর্দা, সাদা পাতা, গুল, খৈনি ইত্যাদি]। অতিরিক্ত মদ্যপান বর্জন।
প্রয়োজনে ওষুধ-
নানা রকমের ওষুধ রয়েছে। প্রত্যেকের জন্য একই রকম রক্তচাপের ওষুধ লাগবে তা নয়, অনেকের লাগে একাধিক ধরণের ওষুধ। রক্তচাপের মান, অন্যান্য সহযুক্ত উপাদান, ওষুধের মূল্য নানা বিবেচনায় ওষুধের ব্যবস্থাপত্র দিতে হয় ডাক্তারকে।
এসিই ইনহিবিটারস (এনজাইম ইনবিহিটারস)- এই ওষুধ রক্তনালীকে শিথিল করার মাধ্যমে রক্তচাপ কমায়। শরীরে এনজিওটেনসিন নামে হরমোন উৎপাদন রোধ করে এবং রক্তনালী সংকুচিত করার এই হরমোনের ক্রিয়া রোধ করে কাজ করে এই ওষুধ। এই ওষুধ সেই সঙ্গে কিডনিরও সুরক্ষা দেয় এবং হার্ট এ্যাটাক ও স্ট্রোক প্রতিরোধ করে।
এ.আর.বি (এনাজিওটেনসিন রিসেপটার বøকার)
এই ওষুধগুলোও রক্তনালীকে উম্মুক্ত করে এবং শিথিল করে, এভাবে হ্রাস করে রক্তচাপ। কিডনিও সুরক্ষা করে।
বিটা বøকারস-হূদপিন্ডকে ধীরে স্পন্দিত করার মাধ্যমে এবং কমজোরে স্পন্দিত করার মাধ্যমে এই ওষুধগুলো কমিয়ে আনে রক্তচাপ ও শিথিল করে হৃদযন্ত্র। বিটাবøকারস, হার্ট এ্যাটাক ও স্ট্রোকও প্রতিরোধ করে।
ক্যালসিয়াম চ্যানেল বøকারস- ক্যালসিয়ামকে রক্তনালী ও হৃদযন্ত্র থেকে বের করে দিয়ে শিথিল করে রক্তনালীদের। এভাবে কমে রক্তচাপ।
ডাইইউরেটিকস্-মূত্রবর্ধক ওষুধ, অনেক সময় বলা হয় ওয়াটার পিল। মূত্রের মাধ্যমে শরীরের বাড়তি পানি ও সোডিয়াম বের করে দেয়। এসব ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও আছে। এজন্য ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ নির্বাচন প্রয়োজন হয়।

সহকারী অধ্যাপক, এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগ
বিএসএমএমইউ, ঢাকা।

 


আপনার প্রশ্ন
প্রশ্ন : আমি অবিবাহিতা। বয়স ১৭। আমার কপালে ও গালে বেশ অনেকটা জায়গায় কালো দাগ পড়েছে। এ এক বিড়ম্বনা। অনেক মলম ব্যবহার করেছি। দাগ কমছে না। তাই আপনার শরণাপন্ন হলাম।
Ñ আসমা, ইডেন কলেজ, ঢাকা।
উত্তর : আপনার ভেতরে কোন রোগ বা অন্য কোন কারণে সমস্যাটি হতে পারে। যেটি আপনার রক্তের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে শনাক্ত করা প্রয়োজন। বর্তমানে ‘কেমিক্যাল পিলিং’ পদ্ধতি ব্যবহার করে এটি নির্মূল করা সম্ভব। পাশাপাশি কারণভিত্তিক ওষুধ সেবন করতে হবে।
প্রশ্ন : আমি বিবাহিত। বয়স ৫৮। বর্তমানে আমি স্ত্রী সহবাসে সম্পূর্ণ অক্ষম। অর্থাৎ আমার লিঙ্গের উত্থান হচ্ছে না। আমাকের এ বয়সে কি সুস্থ করা সম্ভব?
Ñ আবু বাবর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী।
উত্তর : নিশ্চয়ই। আপনাকে সুস্থ করা সম্ভব। আপনার দেহের সেক্স-হরমোন এনালাইসিস করে প্রকৃত মাত্রা নির্ণয় করে আপনার যৌবন শক্তি ফিরিয়ে আনা সম্ভব।
প্রশ্ন : আমি অবিবাহিত। বয়স ৩০। এ বয়সেই আমার মাথার অনেক চুল পড়ে গিয়ে টাক পড়েছে। এতে আমি হতাশ। অনেক বিশেষজ্ঞ ডাক্তার চিকিৎসা করেছেন এবং ব্যর্থ হয়েছেন। শেষবার আপনার শরণাপন্ন হলাম।
Ñ রফিক, নাটোর।
উত্তর : বর্তমানে অত্যাধুনিক ‘স্টেমসেল থেরাপি’র মাধ্যমে সকল ধরনের টাক চিকিৎসা সফলভাবে সম্ভব। এতে কোন পার্শ্বক্রিয়া নেই।
প্রশ্ন : আমি বিবাহিতা। বয়স ৪০। আমার দেহে অসম্ভব চুলকানিসহ র‌্যাশ ভরে গিয়েছে। মহল্লার ডাক্তার চিকিৎসা করেছেন। কিছু কমে আবার বেড়েছে। প্লিজ, আমার রোগটির একটি সুচিকিৎসা দিন।
Ñ আফসানা, কলাবাগন, ঢাকা।
উত্তর : আপনার রোগটি সম্ভবত ‘সেবোরিক ডার্মাটাইটিস’। আপনি দেরী না করে একজন অভিজ্ঞ ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

ডা : একেএম মাহমুদুল হক খায়ের
ত্বক, যৌন, সেক্স ও এলার্জী বিশেষজ্ঞ
এবং কসমেটিক সার্জন।
সিনিয়র কনসালটেন্ট (এক্স),
বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।
ফোন : ০১৯৯০০০০১৯১।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন