বৃহস্পিতবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ০৩ ভাদ্র ১৪২৯, ১৯ মুহাররম ১৪৪৪

প্রবাস জীবন

নিউইয়র্কে এসএসসি-২০০১ ও এইচএসসি-২০০৩ বাংলাদেশ ব্যাচের পুনর্মিলনী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৪:১৬ পিএম

নিউইর্য়কে এসএসসি-২০০১ ও এইচএসসি -২০০৩ বাংলাদেশ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্প্রতি নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডের সেন্টার রিচে ‘আয় বন্ধু আয় কে কারে চিনে দেখ, এইচএসসি তে ছিলাম তিনে এসএসসি তে এক’ এ স্লোগান নিয়ে ব্যাচের পুনর্মিলনীর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ওইদিন বিকাল থেকেই নিউইয়র্কের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীরা এতে যোগ দেন। শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) ব্যাচের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

পুনর্মিলনীতে বন্ধুরা আয়োজক বন্ধুদের ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি আমেরিকায় প্রবাস জীবনের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। এছাড়া বন্ধুরা অতীতের বিভিন্ন সময়ে দেশে অবস্থানরত ব্যাচের বন্ধুদের চিকিৎসায় আর্থিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসার জন্য ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি ভবিষ্যতে এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখার আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে আয়োজক শিক্ষার্থীরা আমেরিকাতে আগত নতুন বন্ধুদের বিভিন্ন চাকরির তথ্যসহ আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করার কথা জানান। নাচ, গান , আড্ডা আর কৌতুকে মুখরিত ছিল পুরো অনুষ্ঠান । এতে গান পরিবেশন করেন ব্যাচের বন্ধু হাসিনুর চৌধুরী, এহেছান এবং নওশাদ। এ ছাড়া অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ ছিল র‌্যাফেল ড্র। শেষ পর্যায়ে নৈশ ভোজের পাশাপাশি মনোরম পরিবেশে ফটোসেশনের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আমেরিকায় অবস্থানরত এসএসসি -২০০১ও এইচএসসি-২০০৩ বাংলাদেশ ব্যাচের শিক্ষার্থী জহিরুল আলম শান্ত, এহেছান, তানিম, ন্যান্সি, শাখাওয়াত, নওশাদ, রাফসান, তানিয়া আলম, তানিয়া আজম, হাসিন, তানিম, অপু, নাজমুল, শাহাদাত, আশিক, খোকন প্রমুখ।

পুর্নমিলনীতে জানানো হয়, গত বছর থেকে এ পর্যন্ত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমেরিকায় অবস্থানরত ২০০১/২০০৩ ব্যাচের নতুন নতুন বন্ধুদের যোগদানের মধ্য দিয়ে আমাদের ব্যাচের বন্ধুদের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে গেছে।

২০০১/২০০৩ ব্যাচের এক শিক্ষার্থী বলেন, সবার সহযোগিতা ও আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় বন্ধুরা সবাই মিলে এ বছরে এ ধরনের গেট টুগেদার আয়োজন করেছি এবং ভবিষ্যতে এর ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে। পাশাপাশি ব্যাচের সকলের আন্তরিক সহযোগিতার মধ্য দিয়ে আমাদের বন্ধুত্ব আরোও মজবুত হবে এই আশা করি।

এহেছান বলেন, হাজার হাজার মাইল দূরে এসে দীর্ঘ আঠার বছর পর একই ব্যাচের এত বন্ধু এক সাথে পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। অতীতে বন্ধুদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি হতে পারে। তাই বলে কারও মতামতকে প্রাধান্য দিতে গিয়ে কোন বন্ধুকে ফেসবুক, হোয়াটসআপ এর মত ভার্চুয়াল জগত থেকে বাদ দিয়ে নয় বরং সবার মতামতকে সমান গুরুত্ব দিয়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়াটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। অনুষ্ঠানের শেষে এসএসসি-২০০১ ও এইচ এস সি -২০০৩ বাংলাদেশ ব্যাচের শিক্ষার্থী অনুষ্ঠানের আহবায়ক ন্যান্সি ও অনুষ্ঠান সঞ্চালক নওশাদ ব্যাচের পক্ষ থেকে সবাইকে ধন্যবাদ জানান ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন