বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮, ২২ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

বাবরের সাথে ‘অন্যায়’ হয়েছে

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ নভেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তনে অস্ট্রেলিয়াকে প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ে রেখেছেন গুরুত্বপ‚র্ণ ভ‚মিকা। আর তাতে ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন ডেভিড ওয়ার্নার। তবে জুরি বোর্ডের এই সিদ্ধান্তে কোনো মতেই মেনে নিতে পারছেন না শোয়েব আখতার। পাকিস্তানের সাবেক এই গতি তারকার মতে, তার স্বদেশি বাবর আজমের পাওয়া উচিত ছিল টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার। সেটা না হওয়াকে ‘অন্যায়’ মনে করছেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস।
গতপরশু দুবাইতে নিউজিল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারিয়ে অস্ট্রেলিয়া শিরোপা জেতার পর দলটির ওপেনার ওয়ার্নারের হাতে তুলে দেওয়া হয় টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার। ৭ ম্যাচে ৪৮.১৬ গড় আর ১৪৬.৭০ স্ট্রাইক রেটে ২৮৯ রান করেছেন তিনি। হাফসেঞ্চুরির স্বাদ নিয়েছেন তিনবার। বিশ্বকাপের আগে ফর্ম নিয়ে সমালোচনার মুখে থাকলেও মাঠে ব্যাট দিয়েই পাল্টা জবাব দিয়েছেন তিনি।
বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে ছন্দ দেখালেও ওয়ার্নার নিজের সেরাটা যেন জমিয়ে রেখেছিলেন শেষ বাধাগুলো এড়ানোর জন্য। সেমিফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩০ বলে ৪৯ করার পর ফাইনালে কিউইদের বিপক্ষে খেলেন ৩৮ বলে ৫৩ রানের ইনিংস। ম্যাচের পরিস্থিতি বিবেচনায় দুটি ইনিংসই রাখে অজিদের জয়ে ভীষণ গুরুত্বপ‚র্ণ ভ‚মিকা। ম‚লত সেমিফাইনাল ও ফাইনালের দুটি ইনিংসই ওয়ার্নারের টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার রসদ যোগায়।
তবে শোয়েবের মতে, পুরস্কারটি একমাত্র যোগ্য দাবিদার পাকিস্তান অধিনায়ক। অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে পাকিস্তান সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিলেও তাদের অধিনায়ক বাবর এবারের আসরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। ৬ ম্যাচে চার ফিফটিতে ১২৬.২৫ স্ট্রাইক রেটে ৩০৩ রান করেছেন বাবর। গড়টাও ঈর্ষণীয়, ৬০.৬০। ফাইনাল দেখতে এদিন মাঠেই ছিলেন শোয়েব। ম্যাচ শেষে টুইটারে বাবরের টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় না হওয়াতে হতাশা প্রকাশ করেন তিনি, ‘আমি সত্যিই বাবর আজমের ম্যান অব দা টুর্নামেন্ট হওয়ার অপেক্ষায় ছিলাম। নিশ্চিতভাবেই এটা অন্যায় সিদ্ধান্ত।’
ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জয়ের পাশাপাশি একটি রেকর্ড গড়েছেন ওয়ার্নার; টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এক আসরে অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সর্বাধিক রানের তালিকায় এখন শীর্ষে তিনি। পেছনে ফেলেছেন সাবেক ওপেনার ম্যাথু হেইডেনকে। ২০০৭ সালের প্রথম আসরে ২৬৫ রান করেছিলেন তিনি। ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের কেভিন পিটারসেনের পর দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ী দল থেকে ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্টের পুরস্কার জিতলেন ওয়ার্নার।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন