সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ইসলাম

নিরাপদ-হালাল বিনিয়োগের জন্য সুকুক বন্ড-৩

উবায়দুর রহমান খান নদভী | প্রকাশের সময় : ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

বাংলাদেশে আর্থিক ক্ষেত্রেই নয়, প্রায় সব ক্ষেত্রেই ভেজাল প্রতারণা ও দুর্নীতির জন্য মানুষ ভয়ে আতঙ্কে সিটিয়ে থাকে। ইসলামী শরীয়াহ ও ফিকহের বিশিষ্ট জ্ঞানী ব্যক্তি ও উলামা মাশায়েখের কর্তব্য এই অব্যবস্থাপনা এবং জাতীয় অবক্ষয়কে রুখে দাঁড়ানো।

মানুষকে নিরাপদ জীবন পথপ্রদর্শন করা। এ দেশে প্রথম থেকেই কনভেনশনাল ব্যাংক বলতেই ছিল সুদভিত্তিক ব্যাংক। আল্লাহভীরু মানুষ হারামের ভয়ে ব্যাংক বীমার কাছেও যেত না। যাদের সঞ্চয়ী হিসাব ছিল, তারাও নিজের টাকার পরে যত যাই জমা হতো তা ব্যাংক থেকে তুলতেন না। বলতেন, সুদ লওয়াও তো গুনাহ আর অন্যকে দেওয়াও গুনাহ। তখন আলেমগণ বলতেন, ব্যাংকে ফেলে রাখলে এই সুদের টাকাগুলো মালিকরা নেবে এবং আবার সুদে লাগাবে। তখন আলেমরা পরামর্শ দিয়ে বলতেন, এসব টাকা ব্যাংক থেকে তুলে সওয়াবের নিয়্যত না করে এমনিতেই কাউকে দিয়ে দিন।

অথবা এমন কোথাও ফেলে দিন, যেখান থেকে অভাবি কেউ কুড়িয়ে নিয়ে ব্যবহার করতে পারে। ব্যাংক থেকে সুদ অনিচ্ছাকৃতভাবে তোলার জন্য তওবা ইস্তেগফার করতে থাকুন। দানের জন্য সওয়াবের আশা করলে কবিরা গুনাহ তো হবেই, হারামকে সওয়াব মনে করায় ঈমানও চলে যাবে। আর অনেকে চলতি হিসাব খুলতেন। যেন কেবল টাকার লেনদেন ও নিরাপত্তা সুবিধাটুকু পাওয়া যায়। টাকার সুদ জমা না হয়। কিন্তু এ ক্ষেত্রেও সুদী ব্যাংককে প্রচ্ছন্ন সহায়তা করার গুনাহ হতে পারে।

এমন সময় ইমাম আজম আবু হানিফা রহ. এর আমানত ব্যবহার নীতি ও মুদারাবা ভিত্তিক আর্থিক দৃষ্টিকোণ ও কল্যাণমূলক বিনিয়োগ এবং বাণিজ্যিক কার্যক্রমের বিশ্লেষণ করে আধুনিক বিশ্বে শরীয়াসম্মত ব্যাংক চালু হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গ্যারান্টি ফিক্সট জমার বিপরীতে অবশ্য প্রাপ্ত সুদ মালিক বা গ্রাহকরা না নিয়ে ইসলামী ব্যাংকগুলো তা বিভিন্ন খাতে ব্যয় করে দেয়। চ্যারিটি বা সামাজিক দায়িত্ব খাতে এই সুদ খরচ হয়।

কিন্তু মালিক ও গ্রাহকরা কেবল হালাল ব্যবসা বিনিয়োগ থেকে প্রাপ্ত লাভ-লোকসান, তাকাফুল বা মিউচুয়াল অঙ্গীকারের ভিত্তিতে গড়পড়তা ভাগ করে নেয়। যা ধারণা মতো হয়, তবে কম বেশি হলে একে অপরের সম্মতিতে কম বেশি হারেই বণ্টন করে নেয়। এটিই ইসলামী ব্যাংকের বৈশিষ্ট্য। যারা বলেন, ইসলামী ব্যাংক আর সাধারণ ব্যাংক সমান। তারা একই রকম। একথা বলা ঠিক না। মক্কার মুশরিকরা বলতো, ইন্নাল বাইআ মিসলুর রিবা, ব্যবসা তো সুদের মতোই। আল্লাহ বলেন, মতো হলেও পার্থক্য আছে। কেননা আল্লাহ ব্যবসাকে হালাল করছেন আর সুদকে হারাম করেছেন। (আল কোরআন।)

সুকুক বন্ড শরীয়াসম্মত নীতিতে প্রস্তাবিত একটি পুঁজি গঠন ও বিনিয়োগ ব্যবস্থা। এর সব ক্ষেত্রে শরীয়া পরিপালন করা উদ্যোক্তা ও ম্যানেজমেন্টের ঈমানী দায়িত্ব। যেমন, ইসলামী ব্যাংক নাম নিলেই প্রতিটি ব্যবসা, বিনিয়োগ শরীয়াসম্মত উপায়ে করা ম্যানেজমেন্ট ও ব্যাংকার পর্যায়ের ঈমানী দায়িত্ব হয়ে যায়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (15)
Juwël Rana ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৬ এএম says : 1
মুসলমানের কর্তব্য সুদবিহীন ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুযোগ খুঁজে বের করা। সুকুক বন্ড সেরকম একটি সুযোগ
Total Reply(0)
Ibrahim Khalil ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৬ এএম says : 1
বাংলাদেশে হালাল ও নিরাপদ বিনিয়োগ করার সুযোগ করে দেয়ায় বেক্সিমকোকে ধন্যাবদ। তবে টোটাল প্রক্রিয়া দ্রুততর ও স্বচ্ছ হতে হবে।
Total Reply(0)
Yamin Karim ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৭ এএম says : 1
নিরাপদ-হালাল বিনিয়োগের জন্য সুকুক বন্ড এক নতুন মাইলফলক। ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জন্য এটা আশার আলো দেখাচ্ছে। মুসলিম দেশগুলোতে এই বন্ডের ব্যাপক চাহিদা আছে।
Total Reply(0)
Jamal Hossain ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৭ এএম says : 1
আমাদের মত মুসলমাদের জন্য এটা একটা বড় সুখবর। আমি বিনিয়োগের বিষয়ে ভাবছি।
Total Reply(0)
Mohi Uddin ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৭ এএম says : 0
আমাদের দেশে এই ধরনের ইসলামী অর্থব্যবস্থা চালু করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। সুদের তুলনায় ব্যবসাকে উত্তম ও শোষণমুক্ত বিশ্বাস করে বহু অমুসলিমও বর্তমানে ইসলামী অর্থব্যবস্থাকে গ্রহণ করছে।
Total Reply(0)
Ibrahim Hossain ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৭ এএম says : 0
শরীয়াহ্ভিক্তিক সুককে বিনিয়োগে করে নিজেদের পুঁজি নিরাপদ রাখুন, লাভবান হোন। পাশাপাশি দেশের উন্নয়নে নিজেকে শরীক করুন।
Total Reply(0)
Jashim Uddin Salim ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৭ এএম says : 0
ইসলামী অর্থনীতি পুঁজিবাদী বা সমাজবাদী যে কোন অর্থব্যবস্থার তুলনায় প্রগতিশীল এবং মানবতার জন্য কল্যাণকর।ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা। ইসলামী অর্থনীতি সেই ইসলামী জীবনব্যবস্থার এক অপরিহার্য অংশ। ইসলামী অর্থব্যবস্থা মানব কল্যাণময়, বৈজ্ঞানিক এবং ভারসাম্যপূর্ণ অর্থব্যবস্থা।
Total Reply(0)
Yousuf Ali ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৮ এএম says : 1
সুকুক বন্ড মুসলিম দেশগুলোতে জনপ্রিয়তা লাভ করছে। আমাদের দেশে এই বন্ড নিয়ে আসায় ধন্যবাদ।
Total Reply(0)
Hannan Kabir ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৮ এএম says : 1
দেশের উন্নয়নে সুকুক বন্ড ভূমিকা রাখবে। নিরাপদ বিনিয়োগ চালু হলে বড় বড় প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন সহজ হবে এবং জনগণও লাভবান হবে।
Total Reply(0)
তোফাজ্জল হোসেন ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৮ এএম says : 0
শরিয়াসম্মত বিনিয়োগের এরকম সুযোগ পেলে অনেকেই বিনিয়োগে এগিয়ে আসবে।
Total Reply(0)
হেদায়েতুর রহমান ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৩৩ এএম says : 0
সুকুক বন্ড শরীয়াসম্মত নীতিতে প্রস্তাবিত একটি পুঁজি গঠন ও বিনিয়োগ ব্যবস্থা। এর সব ক্ষেত্রে শরীয়া পরিপালন করা উদ্যোক্তা ও ম্যানেজমেন্টের ঈমানী দায়িত্ব।
Total Reply(0)
তুষার আহমেদ ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৩৯ এএম says : 0
বাংলাদেশের মানুষ আগে থেকেই সুদকে এড়িয়ে চলতে চায়। এ জন্য ইসলামি ব্যাংকিং খুবই জনপ্রিয়। আর তাই দেশে আরও আগেই ‘সুকুক’ বন্ড দরকার ছিল।
Total Reply(0)
মনিরুজ্জামান ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪০ এএম says : 0
দেশের পুঁজিবাজারে বেক্সিমকোকে দিয়ে শরীয়াভিত্তিক বন্ডের সূচনা হলো। এই বন্ড থেকে ভালো রিটার্ন পাওয়া সম্ভব। আশ করি ভবিষ্যতে দেশের বাইরে থেকেও এক্ষেত্রে আরও বড় বিনিয়োগ আসবে।
Total Reply(0)
আবদুর রহমান ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪১ এএম says : 0
বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডের বাড়তি সুবিধা হচ্ছে বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ গতানুগতিক বন্ডের পরিবর্তে শরীয়াভিত্তিক বিনিয়োগ পছন্দ করে।
Total Reply(0)
হুমায়ূন কবির ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪২ এএম says : 0
দেশ-বিদেশে যারা নিরাপত্তাহীনতার ভয়ে বিনিয়োগ করতে ভয় পাচ্ছেন, তাদের জন্য নিরাপদ বিনিয়োগের নামই হচ্ছে সুকক। শরীয়াভিক্তিক পরিচালিত সুককে বিনিয়োগে করে নিজেদের পুঁজি নিরাপদ রাখুন, লাভবান হোন। পাশাপাশি দেশের উন্নয়নে নিজেকে শরীক করুক।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন