বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৪ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ঝড় শেষে শাবি ক্যাম্পাস প্রগাঢ় নীরবতায়

ভিসি’র অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত প্রতিবাদ চলবে জানালেন শিক্ষার্থীরা

শাবি সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৯ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৩ এএম

প্রভোস্টের পদত্যাগ দাবি ও ভিসির পতন দাবি আন্দোলনে টানা ১৪ দিনের ঝড়ের শেষে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে নীরবতা বিরাজ করছে। ভিসির বাসভবনের সামনে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক অবরোধমুক্ত করে দেওয়া হলেও ভিসি অপসারণের প্রজ্ঞাপন জারির পূর্ব পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে অহিংস আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এ অনুযায়ী গত বুধবার রাতে প্রতিবাদী সঙ্গিতানুষ্ঠান করা হয়। এপেন্ডিসাইটিসের সার্জারির পর মাহিন শাহরিয়ার রাতুল এখনো হাসপাতালে অবস্থান করলেও বাকি ২৭ জন অনশনকারী ডাক্তারের নির্দেশনা মেনে নিজ নিজ হল অবস্থান করছেন।

অনশন ভাঙার পর গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের যাবতীয় অফিস কার্যক্রম পুনরায় চালু হয়েছে। গত বুধবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক খুলে দেওয়া হলেও রেজিস্ট্রার ভবন ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ভবনের তালা খোলা হয়নি। পরে গতকাল দুপুর ১২টায় এ দুইটি ভবনের তালা খুলে দেওয়া হয়। গত বুধবার শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও তার সহধর্মিণী ড. ইয়াসমিন হক অনশনকারীদের অনশন ভাঙানোর পরও আন্দোলন চলমান রয়েছে বলে শিক্ষার্থীরা ঘোষণা করে ভিসি সরিয়ে নেওয়ার নতুন প্রজ্ঞাপন জারির পূর্ব পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এর অংশ হিসেবে গতকাল দুপুরে বিকাল পাঁচটায় ভিসির বাসভবনের সামনে রোড পেইন্টিং শুরু করেছেন তারা। এছাড়া কর্মসূচির অনুযায়ী সন্ধ্যা ৬ টায় ‘কেমন শাবিপ্রবি চাই’ বিষয়ে মুক্ত আলোচনায় জড়ো হওয়ার কথা রয়েছে।

গত ১৩ জানুয়ারি রাত আটটা থেকে বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রভোস্টের পদত্যাগ দাবির আন্দোলনে ১৫ জানুয়ারি শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের হামলার পর আন্দোলনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ বেড়ে যায়। এরপর ১৬ জানুয়ারি সন্ধ্যায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার পর থেকে আন্দোলন গড়ায় ভিসি পতনের এক দফা দাবিতে। ঘটনার দিন রাতে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাস ও আবাসিক হল বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হলেও সে নির্দেশ অমান্য করে শিক্ষার্থীরা গড়ে তুলে আন্দোলন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ, স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় রাজনীতিবীদদের মধ্যস্থতার চেষ্টা উপেক্ষা করে আন্দোলন সর্বশেষ রূপ নেয় আমরণ অনশনে। অনশনের প্রায় এক সপ্তাহ পর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক ও বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও ড. ইয়াসমিন হক অনশনকারীদের অনশন ভাঙান। অনশন ভেঙে শিক্ষার্থীরা ঘোষণা দেন ভিসি’র পতনের আগ পর্যন্ত আন্দোলন চলমান থাকবে।

অনশনকারী শিক্ষার্থী শাহরিয়ার আবেদিন বলেন, অনশন ভাঙার পর ৬ জন শিক্ষার্থীর শারীরিক অবস্থা বেশ খারাপ হওয়ায় তাদের আবারও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে ৫জনের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে গতকাল সকালে তাদের বাসায় নিয়ে আসা হয়। একজন শিক্ষার্থী এখন পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে যারা বাসায় এসেছেন তারা পুরোপুরি সুস্থ হতে আরও সময় লাগবে। চিকিৎসকদের তত্বাবধানেই তারা আছেন।

শাহরিয়ার আবেদিন আরও জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। আনুষ্ঠানিক ঘোষণার মাধ্যমে আজকালের মধ্যে হলগুলো খুলে দেওয়া হবে। তাই সব শিক্ষার্থী হলে চলে আসবেন। এরপর আমরা ধারাবাহিকভাবে এই ভিসি’র অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে যাবো।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
শেখ ফাতেহ এলাহী ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৩:০২ এএম says : 0
তাতে কী শিক্ষার্থীদের জীবন থেকে অমূল্য সময়গুলো নস্ট হবে না।
Total Reply(0)
Jahidur Rahman Jahid BSc ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৩:০২ এএম says : 0
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অপসারণ / নিয়োগ কি শিক্ষামন্ত্রীর ক্ষমতার মধ্যে পড়ে?? তাহলে মহামান্য রাষ্টপ্রতি মহোদয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সম্পর্ক কি এবং তিনি কেন সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর?
Total Reply(0)
Babul Howlader ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৩:০২ এএম says : 0
আমরা ও সুষ্টু পরিবেষ পিরে আসুক ,সবাই সুস্হ্য থাকুক কামনা করি ,
Total Reply(0)
Mahamuda Poly ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৩:০৩ এএম says : 0
ক্ষমতা কোনদিন চিরস্থায়ী হয় না মাটির উপরে যতটা ভালো কাজ করবেন মাটির নিচে ততটাই ভালো থাকবেন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন