রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

ফাইনালেও নারিন ঝড়

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ফাইনাল ম্যাচেও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের সুনিল নারিন ঝড় দেখলেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। তারা ঝড়ো ইনিংসের পরও ৯ উইকেটে ১৫১ রানে থামে কুমিল্লা। ফলে বিপিএলের অষ্টম আসরে চ্যাম্পিয়ন হতে ১৫২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করছে ফরচুন বরিশাল। ফাইনালের শুরুটা ঠিক ফাইনালের মতোই করেছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। পাওয়ার প্লে’র ৬ ওভারেই তারা তুলে ফেলে ৭৩ রান। এরপরই ঘুরে দাঁড়ায় ফরচুন বরিশাল। একের পর এক উইকেট নিয়ে কুমিল্লাকে চেপে ধরে বরিশাল। যার ফলে ইনিংসের বাকি ১৪ ওভারে আসে মাত্র ৭৮ রান।

গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় কুমিল্লা। দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেওয়ার দায়িত্বটা বেশ ভালোভাবেই পালন করেন কুমিল্লার ব্যাটার সুনিল নারিন। পাওয়ার প্লে’র পুরো সুবিধা নিয়ে মাত্র ২১ বলে তিনি ফিফটি করেন। পুরো টুর্নামেন্টে ওভার প্রতি ছয়েরও কম রান খরচ করেছিলেন ফরচুন বরিশালের আফগান রহস্য স্পিনার মুজিব-উর রহমান। কিন্তু ফাইনালে তাকে তুলোধুনোই করলেন নারিন। মুজিবের করা ইনিংসের প্রথম ওভারেই দুই ছক্কা ও এক চারের মারে ১৮ রান তুলে নেন এই বাঁহাতি ব্যাটার। এরপর শফিকুল ইসলামের পরের ওভারেও হাঁকান দুই ছক্কা ও এক চার। পরের দুই ওভারে তেমন রান আসেনি। তবে সাকিব আল হাসানের করা পঞ্চম ওভারে তিনটি বাউন্ডারির পর শেষ বলে তিন রান নিয়ে ব্যাক টু ব্যাক ফিফটি হাঁকান নারিন।

পাওয়ার প্লে’র শেষ ওভারে নারিনের বিদায়ঘণ্টা বাজান মেহেদি হাসান রানা। সেই ওভারেও প্রথম বলে ছক্কা হাঁকান নারিন। পরের বলে আবারও ছক্কা মারতে গিয়ে লং অনে ধরা পড়েন নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে। আউট হওয়ার আগে ৫টি করে চার ও ছয়ের মারে ২৩ বলে ৫৭ রান করেন নারিন। তবে নারিন শো’র মাঝেই মাত্র ৪ রান করে আউট হন আরেক ওপেনার লিটন দাস। সাকিবের প্রথম ও ইনিংসের তৃতীয় ওভারের শেষ বলে আর্ম ডেলিভারিতে সরাসরি বোল্ড হয়ে যান ৬ বলে ৪ রান করা এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার। আর নারিনের বিদায়ের পর কুমিল্লাকে পুরোপুরি চেপে ধরে বরিশালের বোলাররা।

পাওয়ার প্লে’র ৬ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ৭৩ রান করে ফেলেছিল কুমিল্লা। কিন্তু পরের ৬ ওভারে আসে মাত্র ২৭ রান, সাজঘরে ফিরে যান চার ব্যাটার। সপ্তম ওভারে ফাফ ডু প্লেসির সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হন ৭ বলে ৮ রান করা মাহমুদুল হাসান জয়। এক ওভার পর মুজিবকে ফিরতি ক্যাচ দেন ৭ বলে ৪ রান করা ডু প্লেসি।
পরের ওভারে আউট হন ইমরুল কায়েসও। ডোয়াইন ব্রাভোর শর্ট পিচ ডেলিভারিতে পুল করতে গিয়ে গতি ও বাউন্সের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারেননি ইমরুল। তার ব্যাটের বাইরের কানায় লেগে বল চলে যায় উইকেটরক্ষক নূরুল হাসান সোহানের গ্লাভসে। কুমিল্লার অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ১২ রান।

মাত্র ১০ ওভারের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় কুমিল্লা। তাদের বিপদ আরও বাড়ে ১১তম ওভারে আরিফুল হকও আউট হলে। মুজিবের বলে সোজা বোল্ড হওয়ার আগে রানের খাতা খুলতে পারেননি আরিফুল। মাত্র ৫ ওভারের মধ্যে ঝড়ো সূচনা থেকে আকস্মিক বিপর্যয় মুখে পড়ে কুমিল্লা। এরপর সপ্তম উইকেট জুটিতে দলকে লড়াই করার মতো পুঁজি এনে দেন ইংলিশ অলরাউন্ডার মইন আলি ও আবু হায়দার রনি। এ দুজনের ৮.৪ ওভারের জুটিতে আসে ৫৪ রান। শফিকুলের করা ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম বলে রান আউট হওয়ার আগে ৩২ বলে ৩৮ রান করেন মইন।

একই ওভারের তৃতীয় বলে শফিকুলের বাউন্সারে আউট হন আবু হায়দার রনি। এ ডানহাতি ব্যাটার ২৭ বল খেলে করেন ১৯ রান। পরের বলেই আপার কাট করতে গিয়ে থার্ডম্যানে ধরা পড়েন শহিদুল ইসলাম। ইনিংসের শেষ দুই বলে আসে আর মাত্র ১ রান, তাও বাই থেকে। ফলে কুৃমিল্লার ইনিংস থামে ১৫১ রানে। ৩১ পান ২ উইকেট।। মুজিব ২৭ ও শফিকুল ৩১ রান খরচায় পান ২টি করে উইকেট। সাকিব, ব্রাভো ও মেহেদি রানা পান ১টি করে উইকেট।

জবাবে জয়ের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ১১ ওভার শেষে ২ উইকেটে ৯০ রান তুলে ফরচুন বরিশাল । এ প্রতিবেদন লেখার সময় (রাত পৌনে ৯টা) গেইল ২২ ও সোহান ১ রানে অপরাজিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps