রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, ০৩ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

জাপান এবং ডব্লিউএফপির ৪৫ লাখ ৫০ হাজার ডলার সহায়তা

লক্ষ্য : রোহিঙ্গা এবং স্থানীয়দের খাদ্য ও কৃষি উন্নয়ন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ মার্চ, ২০২২, ১২:০২ এএম

জাপান সরকার এবং জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি) কক্সবাজারের ‘রোহিঙ্গা’ জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি ঈশ্বরদী ও পটুয়াখালী জেলার স্থানীয় মানুষের খাদ্য ও কৃষি সহায়তা প্রদানের জন্য প্রায় ৪৫ লাখ ৫০ মার্কিন ডলারের একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। ‘রোহিঙ্গা’ জনগোষ্ঠী পর্যাপ্ত সুষম খাদ্য সঙ্কটে রয়েছে এবং কক্সবাজার, ঈশ্বরদী ও পটুয়াখালী জেলার ক্ষুদ্র কৃষকরা দুর্বল কৃষি অবকাঠামো এবং বাজার সংযোগের কারণে উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন।
প্রকল্পটি স্থানীয় কৃষকদের কৃষি অবকাঠামো যেমন সেচ ব্যবস্থা, রাস্তা এবং একত্রীকরণ কেন্দ্রের উন্নয়ন করে সহায়তা করবে। এটি ক্ষুদ্র কৃষকদের প্লেগ প্রতিরোধ এবং সমষ্টি কেন্দ্রগুলোর ব্যবস্থাপনার প্রশিক্ষণের পাশাপাশি বাজার গবেষণা এবং বাজারের সংযোগ জোরদার করার জন্য পর্যবেক্ষণ প্রদান করে।
জাপানি প্রাইভেট কোম্পানি ইউগলেনা স্থানীয় কৃষকদের জন্য সবুজ মটরশুটির উৎপাদনশীলতা ও গুণগত মান উন্নয়নে প্রযুক্তিগত সহায়তা করবে। ইউগলেনা ১৫০ জন মহিলা এবং যুবকদের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণের ক্ষমতা বৃদ্ধিরও প্রশিক্ষণ প্রদান করবে। এর ফলে শিবিরে সুষম খাদ্যে ‘রোহিঙ্গাদের’ প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা যায়। ইউগলেনা তার নিজস্ব এবং বিশ্বের প্রথম ইউগলেনার ইনকিউবেশন কৌশল ব্যবহার করে খাদ্য নিরাপত্তা এবং পুষ্টিতে তার অসাধারণ অবদানের জন্য ‘জাপান এসডিজি’র পুরস্কার ২০২১’ জিতেছে। ‘জাপানের ক্রমাগত সমর্থন আমাদের এ বর্ধিত দুর্বলতার সময়ে রোহিঙ্গাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চাহিদাগুলো অবিলম্বে সমাধান করতে সাহায্য করেছে। শিবিরগুলোর জন্য এ নতুন অর্থায়ন এবং আশেপাশের বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এবং অত্যন্ত কাক্সিক্ষত সমর্থন, বিশেষ করে যেহেতু করোনা ও আবহাওয়া বিপর্যয়ের প্রভাব বাংলাদেশে অব্যাহত রয়েছে’।
‘বাংলাদেশে ‘রোহিঙ্গা’ এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীর কৃষি পরিস্থিতির খাদ্য নিরাপত্তাকে সমর্থন করা অপরিহার্য। জানুয়ারিতে ভাসান চরে ইউএসডি ১০ লাখের জরুরি অনুদান ঘোষণা করার পর, জাপান ভাসানচর এবং কক্সবাজার উভয় ক্ষেত্রেই সহায়তার গুরুত্ব অনুধাবন করে শিবির এবং হোস্ট কমিউনিটিতে ডব্লিউএফপি-এর প্রতিক্রিয়ার জন্য অর্থায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বলেন, আমি সত্যিই আশা করি, এ প্রকল্প ‘রোহিঙ্গা’ এবং বাংলাদেশি উভয়ের জীবনযাত্রার উন্নতিতে অবদান রাখবে। জাপান আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং এনজিওগুলোর সাথে সহযোগিতা করার সাথে সাথে মিয়ানমারে দ্রুত প্রত্যাবাসনসহ টেকসই সমাধানের দিকে কাজ চালিয়ে যাবে। এ সঙ্কটে টেকসই সমাধান খোঁজা আমাদের একটি মুক্ত এবং উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিকের সাধনার জন্য সহায়ক হবে’। এ সমর্থনের মাধ্যমে আগস্ট ২০১৭ সালে ব্যাপক অনুপ্রবেশের পর থেকে ‘রোহিঙ্গা’ সঙ্কটে জাপানের অবদান প্রায় ১৭ কোটি মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে। প্রকল্পটি বাংলাদেশ সরকার এবং অন্যান্য সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের সমন্বয়ে বাস্তবায়িত হবে। সূত্র : ঢাকাস্থ জাপান দূতাবাসের সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps