মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯, ৩০ সফর ১৪৪৪

সারা বাংলার খবর

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের রসুলপুর থেকে সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত উত্তরবঙ্গগামী লেনে ১৫ কিলোমিটার যানজট

টাঙ্গাইল জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৮ জুলাই, ২০২২, ৯:৪৫ এএম | আপডেট : ৩:২৮ পিএম, ৮ জুলাই, ২০২২

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের রসুলপুর থেকে সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত উত্তরবঙ্গগামী লেনে ১৫ কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়েছে। ফলে যানবাহন চলছে থেমে থেমে। উত্তরাঞ্চলের ২২ জেলাসহ বিভিন্ন সড়কের যানবাহন গুলোর চালক ও যাত্রীরা সীমাহীণ দূর্ভোগে পড়েছে। ঘন্টার পর ঘন্টা সড়কে আটকা পড়ে থাকতে হচ্ছে। শুক্রবার ভোর রাত থেকে সড়ক দুর্ঘটনা, টোল আদায় বন্ধ ও ঈদকে কেন্দ্র করে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে মহাসড়কে এ যানজটের সৃষ্টি হয়। যানজটের কারণে ঘরমুখো মানুষ বিশেষ করে নারী ও শিশুরা বিপাকে পড়েছেন। গন্তব্যে যেতে অনেক সময় লাগছে। পোশাক কর্মী রাশেদা বেগম, পারভীন, আসমা বেগম, বৃষ্টি ও রানু আক্তার জানান, গতকাল গার্মেন্টস ছুটি হয়েছে। বাসের ভাড়া অনেক বেশি তাই ট্রাকে করে দিনাজপুরে যাচ্ছি। পরিবারের অনান্য সদস্যরাও সাথে রয়েছে। প্রচন্ড গরম ও সড়কে যানজটের কারনে অনেক কষ্ট হচ্ছে। তারপরও ঈদে প্রিয় মানুষদের সাথে দেখা হবে এই আশায় বাড়ি যাচ্ছি। এদিকে রাজশাহী গামী বাসের যাত্রী আরমান হোসেন, ফজলু ও মঈন উদ্দিন জানান, ঢাকা থেকে ভোর রাতে রওনা হয়েছি। ঢাকা থেকে এ পর্যন্ত আসতে বেশ কয়েকটি জায়গায় আটকা পড়তে হয়েছে। টাঙ্গাইল অংশে ভালোভাবে আসলেও সেতুর পূর্ব পাড়ে এসে আটকে গেছি। এসময় গাড়ী চালকরা বলেন, গত ঈদে নির্বিঘ্নে এই মহাসড়ক দিয়ে গাড়ি চালিয়েছি। কিন্তু এবার মহাসড়কের বিভিন্ন জায়গায় যানজটের কবলে পড়তে হচ্ছে। এতে করে যাত্রী ও আমাদের সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
সাজেন্ট মো: আব্দুস সাত্তার বলেন, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে স্বাভাবিকের চেয়ে দ্বিগুন যানবাহন চলাচল করছে। অন্য জেলার যানবাহন গুলোও চলছে এ সড়ক দিয়ে। ফলে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে গাড়ি বিকল হওয়াসহ অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে কিছুটা ধীর গতি দেখা দিয়েছে। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে যানচলাচল স্বাভাবিক হবে।
টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, গত ঈদের ন্যায় এবারও যানজট মুক্ত মহাসড়ক উপহার দেওয়ার লক্ষে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। উত্তরাঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বাস সেতুর পূর্বপাপ্রান্ত গোলচত্তর থেকে গোবিন্দাসী এবং ভূঞাপুর হয়ে এলেঙ্গা চার লেনে এসে উঠছে। আর উত্তরাঞ্চল থেকে আসা গরুবাহী যানবাহন মহাসড়ক দিয়ে সরসরি ঢাকা যাচ্ছে। পুলিশ সুপার আরও জানান, গত ঈদের মতো এই ঈদেও যেন মহাসড়কে যানজট না হয় সেজন্য ৬২০ জন পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এছাড়াও ১০০ জন এপিবিএন সদস্য দায়িত্ব পালন করছে। দূর্ঘটনা কবলিত যানবাহন দ্রুত সরিয়ে ফেলা যায় এজন্য ৪টি রেকার প্রস্তুত রয়েছে। মহাসড়ক পর্যবেক্ষণের জন্য স্থাপন করা হয়েছে ওয়াচ টাওয়ার।
এদিকে উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকাগামী লেনে যানবাহন চলছে স্বাভাবিক গতিতে। কোন যানজট নেই।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন