বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

যুবতীকে বিয়ের প্রলোভনে গণধর্ষণ, থানায় মামলা

| প্রকাশের সময় : ২৯ জানুয়ারি, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা : জেলার ভাঙ্গা উপজেলার সাউতিকান্দা গ্রামে শুক্রবার সকালে এলাকাবাসীর সংবাদে গণধর্ষণের শিকার জনৈকা এক যুবতীকে উদ্ধার করেছে ভাঙ্গা থানা পুলিশ। এ ব্যাপারে ধর্ষিতা ভাঙ্গা থানায় চার ধর্ষকের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ মেয়েটিকে ফরিদপুর নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠিয়েছে।
এলাকাবাসী, এজাহার ও ধর্ষিতা সূত্রে জানা যায়, বরিশাল গৌরনদীর জনৈক ফালু মোল্লার মেয়ে স্বামী পরিত্যক্তা লিপি আক্তার রূপা (২৪) একটু বাঁচার আশায় ঢাকার মিরপুরে একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করার সুবাদে ঢাকার মিরপুরে একটি মেছে থাকত। চাকরি স্থলে পরিচয় হয় গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের জনৈক রবিউলের সাথে। তার পারিবারিক ও মানসিক দুর্বলতা পেয়ে রবিউল তাকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ভালোবাসার অভিনয় করে। অতঃপর বুধবার রূপাকে ফুঁসলিয়ে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসার কথা বললে রূপা সরল মনে রাজি হয়। কিন্তু ধূর্ত রবিউল তাকে তার নিজ বাড়িতে না নিয়ে ভাঙ্গা উপজেলার সাউতিকান্দা গ্রামের তার এক আত্মীয় মোফাজ্জেল শেখের বাড়িতে নিয়ে যায়। বুধবার রাতে সেখানে রূপাকে নিজ স্ত্রী পরিচয়ে রাতভর ধর্ষণ করে। বৃহস্পতিবার রবিউল রূপাকে নিয়ে নিজ বাড়িতে যাওয়ার উদ্দেশে রওয়ানা হয়। কিন্তু রবিউল বাড়ি না গিয়ে তার এলাকার এক বন্ধু হাসানকে খবর দিলে সে এসে সাউতিকান্দা গ্রামেরই হাসানের এক আত্মীয় গেদা শেখের বাড়িতে নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার রাতে রবিউল, হাসানসহ তার আরো দুই বন্ধু রূপাকে ওই রাতে গণধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে গভীর রাতে তারা চার বন্ধু মিলে রূপার সাথে থাকা টাকা ও মোবাইল সেট কেড়ে নিয়ে রূপাকে বাড়ির বাইরে নিয়ে বেদম মারধর করে এবং একেবারে মেরে ফেলার প্রস্তুতি নেয়। মেয়েটি টের পেয়ে অসুস্থ্য অবস্থায় দৌড়ে পালাতে চেষ্টা করে। এসময় মেয়েটি দৌড়ে গিয়ে একটি ডোবা পুকুরের মধ্যে অচেতন হয়ে পড়ে থাকে। রবিউল ও তার বন্ধুরা তাকে না পেয়ে রাতেই ওই গ্রাম থেকে পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী মেয়েটিকে শুক্রবার সকালে উদ্ধার করে ভাঙ্গা থানায় খবর দেয়।
ভাঙ্গা থানার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই পিযুষ ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করে জানান, খবর পেয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে ফরিদপুর নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। মেয়েটির স্বীকারোক্তি মোতাবেক এ ব্যাপারে চারজনকে আসামি করে ভাঙ্গা থানায় একটি ধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয়েছে। ধর্ষকরা ভিন্ন থানার অধিবাসী হওয়ায় এবং তাদেরকে গ্রেফতারের অভিযান চলছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন