ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১০ সফর ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সবুজ পাসপোর্টে ১১৫ দেশ ভ্রমণ

দেশের অন্যতম নারী পর্যটক কাজী আসমা

সাদিক মামুন, কুমিল্লা থেকে : | প্রকাশের সময় : ১৫ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

বাংলাদেশিরা কেবল বিদেশে শ্রমিক হয়েই যায় না। ভ্রমণপিপাসু এবং পর্যটক হয়েও বিশ্ব পরিমণ্ডলে লাল সবুজের পতাকার চিহ্ন রাখতে পারে। বিশ্বের অনেক সুন্দর দেশের মধ্যেও এমন দেশ রয়েছে যেখানে ইসলামের ইতিহাসের নান্দনিক স্থাপত্য যে কাউকে বিমোহিত করবে।
দেশ ভ্রমণের খুঁটিনাটি দিক তুলে ধরে উপরের কথাগুলো বললেন বাংলাদেশের অন্যতম নারী পর্যটক কাজী আসমা আজমেরি। যিনি দশ বছরে বাংলাদেশের সবুজ পাসপোর্টে ঘুরে ঘুরে ১১৫টি দেশ ভ্রমণ করেছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা নগরীর বাগিচাগাঁও এলাকায় দর্পনের অপরাজিতা সম্মেলন কক্ষে কতোটা চ্যালেঞ্জ, স্বপ্ন ওব প্রেরণা নিয়ে শতাধিক দেশ ভ্রমণ করেছেন সেইসব অভিজ্ঞতা সাংবাদিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠক ও নারী উদ্যোক্তাদের মাঝে তুলে ধরেন তিনি।
কুমিল্লা ট্যুরিস্ট ক্লাবের সভাপতি জাতীয় যুব পুরস্কারপ্রাপ্ত সংগঠক মাহবুব মোর্শেদের সঞ্চলনায় ব্যতিক্রমী এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কবি ও ছড়াকার বীর মুক্তিযোদ্ধা জহিরুল হক দুলাল। দেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে ৩৩ বছর বয়সী আসমা আজমেরি বলেন, ২০০৭ সালে ২১ বছর বয়সে থাইল্যান্ড দিয়ে শুরু হয় তার ভ্রমণ। তবে ২০১০ সালে ভিয়েতনামে তিক্ত অভিজ্ঞতার শিকার হোন। ভিয়েতনাম থেকে কম্বোডিয়ায় যেতে চাইলে ইমিগ্রেশনের লোকেরা বাংলাদেশি পাসপোর্ট দেখে তাকে কম্বোডিয়ায় যেতে অনুমতি দেয়নি এবং ২৩ ঘন্টা তাকে আটক করে রাখে। আর তখনই তিনি সিদ্ধান্ত নেন, বাংলাদেশি পাসপোর্টেই বিশ্ব ভ্রমণ করবেন।
একজন নারী পর্যটক হিসেবে আসমা আজমেরি উল্লেখযোগ্য দেশের মধ্যে ভারত, নেপাল, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকং, কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম, চীন, ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, সাইপ্রাস, তুরস্ক, মিশর, মরক্কো, সংযুক্ত আরব আমিরাত, স্কটল্যান্ড, স্পেন, জার্মানি, পর্তুগাল, দক্ষিণ কোরিয়া, উত্তর কোরিয়া, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, কানাডা, আজারবাইজান, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, পর্তুগাল, গ্রীস ভ্রমণ করেন।
পর্যটক আসমা আজমেরি বলেন, দশ বছরে বাংলাদেশের সবুজ পাসপোর্টে জাতিসংঘের স্বীকৃত ১৯৩টি দেশের মধ্যে ১১৫টি দেশ ভ্রমণ সম্পন্ন করেন। বাকি সবকটি দেশ ভ্রমণের ইচ্ছে ও প্রস্তুতি রয়েছে তার। এরপর প্রকাশ করবেন ভ্রমণ অভিজ্ঞতা নিয়ে বই। তিনি বলেন, ভ্রমণের সময় তার সাথে থাকতো লাল সবুজের পতাকা। এ পতাকাই তার দেশপ্রেমের চিহ্ন। পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষার মানুষের কাছে তিনি পজেটিভ বাংলাদেশের কথা তুলে ধরেছেন। শুনিয়েছেন বাংলার নারীদের পরিশ্রমের কথা। শুনিয়েছেন বাংলাদেশের নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাওয়া সোনার বাংলার কথা। বিভাগীয় শহর খুলনায় জন্ম হলেও বাবা কাজী গোলাম কিবরিয়ার পৈত্রিক নিবাস কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের চিওড়া কাজী বাড়ি। আর তাই কুমিল্লার প্রতি শেকড়ের টান সবসময় অনুভব করেন পর্যটক কাজী আসমা আজমেরি। ব্যবসা প্রশাসনে স্নাতক এবং হিউম্যান রিসোর্সে এমবিএ সম্পন্ন করা এ নারী পর্যটক দীর্ঘদিন নিউজিলান্ডে কাজ করেছেন রেডক্রসে। বর্তমানে নিজেই একটি ট্রাভেল এজেন্সি পরিচালনা করছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Anuarul ১৬ মার্চ, ২০২০, ১১:০৪ এএম says : 0
নারীর জ্ঞানের বিকাশ অব্যাহত থাকবে ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন