ঢাকা বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮ আশ্বিন ১৪২৭, ০৫ সফর ১৪৪২ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

পুলিশের গুলিতে চা দোকানির মৃত্যু

শ্রমিক-পুলিশসহ আহত ১২

এম, এ কুদ্দুস, বিরল (দিনাজপুর) থেকে | প্রকাশের সময় : ২৭ মার্চ, ২০২০, ১২:০৭ এএম

দিনাজপুরের বিরলে রুপালী বাংলা জুট মিলের বকেয়া পাওনাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার রাত পৌনে ৯টার দিকে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করার সময় পুলিশের গুলিতে সুরত আলী (৪০) নামের এক চা দোকান দারের মৃত্যু হয়েছে।
এ ঘটনায় শ্রমিক, পথচারী, পুলিশসহ অন্তত ১২ জন আহত হবার খবর পাওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে ওই জুট মিলের শ্রমিক বিরল হাসপাতাল এলাকার আহাম্মেদ আলীর পুত্র রায়হান (১৯) এবং হুসনা গ্রামের মৃত ফয়জুল হকের পুত্র পথচারী ইব্রাহিম (৫৫) বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছে। অপর শ্রমিক হুসনা গ্রামের প্রফুল্ল চন্দ্রের পুত্র রাজ কুমার (২৪) এর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে দিনাজপুর এম, আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।
নিহত চা দোকানদার সুরত আলীর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসিব হাবিব জানান, প্রায় ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়ে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করতে সেসময় পুলিশ ৩ রাউন্ড টিয়ার সেল ও শর্টগানের ১২ রাউন্ড গুলি চালায়। শ্রমিকরাও পাল্টা হামলা চালায়, গুলি ছুড়ে এবং রুপালী বাংলা জুট মিলে ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। তাদের হামলায় বিরল থানার ২ জন কনস্টেবলসহ এসআই জিল্লুর, এএসআই মিজান, এএসআই আনোয়ার এবং এএসআই নুরুলসহ মোট ৬ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার সকালে একটি সংশ্লিষ্ট ধারায় ১০০০-১১০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বিরল থানার মামলা দায়ের করেছে। নিহত চা দোকানদার সুরত আলীর পরিবারের পক্ষ থেকেও হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন নিহতের পরিবারের সদস্যরা।
এদিকে ঘটনার পর রাতেই জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, পিপিএম (বার), উপজেলা নির্বাহী অফিসার জিনাত রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র সবুজার সিদ্দিকী সাগর, সাধারণ সম্পাদক রমাকান্ত রায় ঘটনাস্থল পরির্দশন করেন এবং নিহতর পরিবারকে সান্তনা প্রদান করে শ্রমিকদের শান্ত থাকার আহবান জানান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন