শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৭ কার্তিক ১৪২৮, ১৫ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

দুর্গম চরাঞ্চলে বিদ্যুতের আলো পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার- ব্যারিস্টার শামীম, এমপি

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৮ আগস্ট, ২০২১, ৭:০৮ পিএম

জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব ২৯ গাইবান্ধা-১ আসনের এমপি ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেছেন শতভাগ বিদ্যুতায়নের এক মাহেন্দ্রক্ষণে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। এরই মধ্যে দেশের গ্রীড এলাকার শতভাগ মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছে সরকার। অফগ্রীডে থাকা প্রত্যন্ত, দুর্গম ও বিচ্ছিন্ন চর এলাকায় বিদ্যুতের আলো পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার। যা সত্যিই অবিস্মরণীয়। কখনো চিন্তাও করিনি সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে এই অঞ্চলের মানুষ বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হবে। তা এখন সরকারের প্রচেষ্টায় সফল হয়েছে।

শনিবার (২৮ আগষ্ট) দুপুরে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কাপাসিয়া ইউনিয়নের অফগ্রীড এলাকা কাজিয়ার চরে রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর আয়োজনে বিদ্যুতায়নের শুভ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি শামীম এসব কথা বলেন।

কাপাসিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন সরকারের সভাপতিত্বে দুই হাজার ১০০ জন গ্রাহকের মাঝে বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনকালে এমপি শামীম আরও বলেন, প্রত্যন্ত এই অঞ্চলে বিদ্যুতের আলোর ন্যায় শিক্ষার প্রসার ঘটাতে একটি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করে দেয়া হবে। তিনি স্থানীয় জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন প্রতিষ্ঠান করার মত জমি পাওয়া গেলে আগামী জানুয়ারিতেই যেন শিক্ষার্থীদের মাঝে পাঠদান করা যায় সেই ব্যবস্থা করে দেয়া হবে। সেই সাথে নদীর ভাঙ্গন ঠেকাতেও বদ্ধপরিকর থাকবো। পাশাপাশি বন্যার সময় কাপাসিয়ার এই দুর্গম এলাকায় চুরি-ডাকাতি নির্মূল করতে সর্বাত্মকভাবে প্রচেষ্টা চালাচ্ছি।

রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর এজিএম এসএম সিফাত চৌধুরীর সঞ্চালনায় এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি বোর্ডের সভাপতি নুরুল ইসলাম প্রামাণিক, জেনারেল ম্যানেজার হরেন্দ্র নাথ বর্মন, সুন্দরগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম মিলন কুমার কুন্ডু, কঞ্চিবাড়ি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোখলেছুর রহমান, বিদ্যুৎ গ্রাহক লুৎফর রহমান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, উপজেলার কাপাসিয়া ইউনিয়নের কাজিয়ার চর, পোড়ার চর, কেরানির চর ও লালচামার চরে রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর বাস্তবায়নে ডিএনই প্রকল্পের আওতায় ৬.৫০ কিলোমিটার সাবমেরিন ক্যাবল মাধ্যমে ৬২.৫০ কিলোমিটার বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণ করা হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে ১৮ কোটি ৯২ লাখ টাকা। চরাঞ্চলের মানুষ বিদ্যুৎ পেয়ে খুবই খুশি হয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন