ঢাকা রোববার, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, ১০ মাঘ ১৪২৭, ১০ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

ইসলামী জীবন

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

প্রকাশের সময় : ১৬ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

প্র : সতরে আওরত শুধু কি নামাযের সময় ফরয নাকি সব সময়?
উ : সতরে আওরত নামাযের ভিতর এবং বাইরে সব সময় ফরয।
প্র : কেউ যদি নামায শেষ করার পর পরিধানের কাপড়ে নাপাক জিনিস দেখতে পায়; এবং নাপাক কখন লেগেছে জানতে না পারে; তাহলে কি করবে?
উ : নাপাক ধুয়ে পরিষ্কার করে ফেলবে। তবে পুনরায় ওই নামাজ আদায় করার প্রয়োজন নেই।
প্র : নামাজ ছাড়া অন্যান্য সময় অপবিত্র পোশাক পরিধান করা কি জায়েয?
উ : জায়েয, তবে না পরাই উচিত।
প্র : কিবলামুখী হওয়ার ব্যাপারে মক্কাবাসী এবং অন্যান্য শহরে বসবাসকারী মুসলমানের মধ্যে কোন পার্থক্য আছে কি?
উ : হাঁ, আছে। কিবলার ব্যাপারে তিন ধরনের নির্দেশ রয়েছে।
১. শরীয়তের দৃষ্টিতে মসজিদে হারামে অবস্থানকারীরা সোজা কা’বা ঘর-এর দিকে মুখ করে নামায পড়বে। ২. মক্কা নগরীতে অবস্থাকারীরা নামায পড়বে মসজিদে হারাম বা হারাম শরীফ-এর দিকে ফিরে। ৩. আর বিশ্ববাসীর জন্যে কিবলার দিক হলো মক্কানগরীর দিক।
২. মহানবীর সা. ধারাবাহিক জীবনী
যুদ্ধের প্রস্তুতি এবং খয়বরের দুর্গ
অন্য দুটি দুর্গ সম্বলিত এলাকা ‘শেক’ নামে পরিচিত।
খয়বরের দ্বিতীয় ভাগের জনবসতি কোতায়রা নামে পরিচিত ছিল। এর মধ্যে ছিল তিনটি দুর্গ। এক, হেছনে কামুস। এ দুর্গের অধিবাসীরা বনু নাযির গোত্রের অন্তর্ভূক্ত ছিল এবং বনু নাযিরের আবুল হাকিক দুর্গে তারা অবস্থান করতো। দুই, হেছনে অতীহ। তিন, হেছনে সালালেম।
উল্লেখিত আটটি দুর্গ ছাড়া খয়বরে অন্যান্য দুর্গ এবং ভবনও ছিল। কিন্তু সেগুলো ছিল অপেক্ষাকৃত ছোট। শক্তি ও নিরাপত্তা ব্যবস্থায় পূর্বোক্ত দুর্গগুলোর মত সুরক্ষিত ছিল না।
প্রথম ভাগের দুর্গগুলোতেই যুদ্ধ হয়েছে। অন্যান্য দুর্গের তিনটি দুর্গ যোদ্ধা থাকা সত্ত্বেও যুদ্ধ ছাড়াই মুসলমানদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছিল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন