শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

ইসলামী জীবন

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ১০ ডিসেম্বর, ২০২১, ১:০৩ এএম

প্রশ্ন : আমার অফিস আমাকে কমিশন দেয়ার কথা বলেও দেয় না। তাই আমি যেদিক থেকে পারছি, টাকা নিয়ে নিচ্ছি। এটা কি জায়েজ হবে? তবে ফেরত দেয়ার হুকুম হলে কিছু টাকা ফেরত দেয়ার সুযোগ থাকবে না, কারণ এসব টাকার মালিক খুঁজে পাওয়া যাবে না।
উত্তর : আপনার অফিস আপনাকে কিভাবে, কখন, কোন কারণে, কোন হারে কমিশন দিতে চেয়েছিল তা আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়। তবে যদি আপনার কাছে মনে হয়, আপনি সব শর্ত পূরণ করার পরও তারা আপনার কমিশন দিচ্ছে না, তা হলে একটি শর্তে আপনি তা নিজেই নিয়ে নিতে পারবেন। শর্তটি হলো- এতে যেন আপনার কমিশন পাওয়ার সকল শর্ত পূরণ হয়ে থাকে। এরপরও কথা থেকে যায়, অফিস যদি ব্যাপারটি জানে, তা হলে তারা এটিকে কিভাবে নেবে? যদি আপনি ন্যায়নীতি ও সততার ওপর থেকে থাকেন, তাহলে তো অফিস জানলেও ন্যায়ত তারা কিছু বলতে পারবে না। এমন হলে আপনার কমিশন নেয়া ঠিক আছে। যদি কোনো বিচারে তা কাউকে ফেরত দেয়ার প্রশ্ন আসে, তা হলে মালিককে ফিরিয়ে দিতে হবে। মালিক হারিয়ে গেলে বা খুঁজে পাওয়া অসম্ভব হলে তাদের নামে দান করে দিতে হবে। মুসলিম হলে সওয়াব পাবে, অন্য ধর্মের হলে দুনিয়ায় এর বদলা পাবে।
প্রশ্ন : আমি প্রেম করে বিয়ে করেছি আজ সাত বছর। তখন আমার বাবা-মা রাজি ছিল, কিন্তু মেয়ের বাবা-মা বিষয়টি জানলেও তারা রাজি ছিল না। এখন আমার তিন সন্তান, বিয়ের এক বছর পর থেকে মেয়ের মা আমাদের সাথে যোগাযোগ রাখত, এখন তারা প্রায় মেনে নিয়েছেন। আমার প্রশ্ন হলো, আমি আগে জানতাম না যে, প্রেম করে বিয়ে করা ঠিক নয়। এখন আমার কি করণীয়?
উত্তর : আপনার এখন কিছুই করণীয় নেই। প্রেম করে বিয়ে করেছেন। সাত বছর হয়ে গেছে। তিন সন্তানের বাবা হয়েছেন। বাবা-মা রাজি ছিলেন, শ্বশুর শাশুড়িও রাজির পথে। তাহলে আর সমস্যা কি? বিয়ে তো করেছিলেন। অতএব সব কিছুই আইনমতো ও শরীয়তসম্মত হয়েছে বলেই মনে হয়। প্রশ্ন থেকে যায়, প্রেম করে বিয়ে করা নিয়ে। এ কথা বলতে আপনি কী বুঝাচ্ছেন তা আমার নিকট স্পষ্ট নয়। যদি এর অর্থ পারিবারিকভাবে পছন্দ করে, সামাজিকভাবে বিয়ে হয়, আর এর শুরুটি হয়ে থাকে ছেলে-মেয়ে একে অপরকে নিজেরাই পছন্দ করার মধ্য দিয়ে। আর যদি আমরা এটাকেই প্রেমের বিয়ে বলি, তাহলে আপনার তেমন কিছুই করতে হবে না। শুধু বিবেয় আগে দেখাশোনা বা প্রেমের জন্য তওবা ইস্তিগফার করতে থাকলেই চলবে। আর যদি এখানে কোনো কবিরা গুনাহ হয়ে থাকে, তাহলে এর পথও তওবা। বিশেষ কিছু করণীয় নেই। আপনারা সবাই মিলে ভালো থাকুন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন