বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০৯ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

খেলাধুলা

রোনালদোর বদলে নামা রামোসের হ্যাটট্রিক,গোল উৎসব করে শেষ আটে পর্তুগাল

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ৩:১৩ এএম | আপডেট : ৪:১০ এএম, ৭ ডিসেম্বর, ২০২২

 
কঠিন সিদ্ধান্তটা পর্তুগাল কোচ সান্তোস খুব সম্ভবত নিয়ে ফেলেছিলেন গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ চলাকালীনই।কোরিয়ার বিপক্ষে নিষ্প্রভ এই পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডকে ম্যাচের ৬৫ মিনিটের সময় নামিয়ে ফেলেন কোচ। তবে সিদ্ধান্তটা মানতে পারেননি রোনালদো। মাঠ ছাড়ার সময় দক্ষিণ কোরিয়ার এক খেলোয়াড়ের সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়িয়ে যান রোনালদো।পরবর্তীতে কোচ ফার্নান্দো সান্তোসের উদ্দেশেও বিদ্রূপ মন্তব্য ছুড়ে দেন সাবেক ইউনাইটেড তারকা।
 
যার শাস্তি হিসেবে তাকে আজ বেঞ্চে রেখে শুরুর একাদশ সাজিয়েছিলেন পর্তুগাল বস সন্তোস।দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের বাদ দিয়ে তিনি আস্থা রেখেছিলেন ২১ বছর বয়সী ফুটবলার রামোসের উপর। আর কোচের সেই আস্থার প্রতিদান দিলেন এই  তরুণ বেনফিকা ফরোয়ার্ড। সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষ হ্যাটট্রিক করে রোনালদোর শূন্যতা বুঝতেই দেননি রামোস।তার অসাধারণ নৈপুন্যে ৬-১ বড় জয় পেয়েছে পর্তুগাল। একটি করে গোল পেয়েছেন পেপে,লিও ও গুয়েরেইরো।
 
কাতারের লুসাইল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচের শুরু থেকেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ছিল পর্তুগালের হাতে। ম্যাচের ১৭ তম মিনিটে রামোসের গোলে উৎসবের শুরুটা করে রামোস।বা প্রান্ত থেলকে  থেকে জোয়াও ফেলিক্সের ডি বক্সে বাড়ানো পাস ধরে সঙ্গে লেগে থাকা প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারদের বাধা এড়িয়ে দুরূহ কোণ থেকে কুনাকুনি শট নেন রামোস কাছের পোস্ট দিয়ে বল জড়ায় জালে।
 
ম্যাচের প্রথম আধঘন্টা সুইজারল্যান্ড বলার মত তেমন কোন পালটা আক্রমণই তৈরি করতে পারেনি।৩০তম জর্ডান শাকিরি পর্তুগালের রক্ষণ দেওয়াল ডিঙ্গিয়ে দুর্দান্ত একটা ফ্রি কিক নিয়েছিলেন,তবে গোলরক্ষকের দক্ষতায় সে যাত্রায় বেঁচে যায় সান্তোসের দল।
 
এর মিনিট তিনেক পরেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে পর্তুগাল। ব্রুনো ফের্নান্দেসের কর্নারে বক্সে ভেসে বলকে দারুণ হেডে জালের ঠিকানা দেন পেপে।
 
২-০ ব্যবধানে প্রথামার্ধ শেষ করা পর্তুগাল বিরতির পর হয়ে উঠে আরও খ্যাপাটে। ৫১ তম মিনিটে দিয়োগো দালোতের এসিস্ট থেকে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন রামোস।এরপর ৪ মিনিট পরই আবারও গোল এবং সেই গোলেও এই তরুণ ফরোয়ার্ডের অবদান। রামোসের ডি বক্সে বাড়ানো নিঃস্বার্থ থেকে নিখুঁত শটে লক্ষ্যভেদ করেন পর্তুগিজ লেফটব্যাক রাফায়েল গেরেরো।
 
৫৮ তম মিনিটে সুইসদের হয়ে একমাত্র গোলটি করেন ম্যানুয়েল আকানজি।তবে এর মিনিট নয়েক পরে নিজের হ্যাট্রিক পূরণ করে ফ্রিজদের ম্যাচে ফেরার সামান্যতম স্বপ্নও ফিকে করে দেন রামোস। বেনফিকা ফরোয়ার্ডের হ্যাট্রিকটি কাতার বিশ্বকাপেরই প্রথম হ্যাটট্রিক।
 
৭৪ মিনিটে ফেলিক্সের বদলি হয়ে মাঠে নামেন  রোনালদো।নেমেই পেয়েছিলেন গোলের দেখা।দুর্ভাগ্যজনকভাবে অফসাইডের কারণে গোলটি বাতিল হয়।যোগ করা সময়ে আরও একটি গোল করে পর্তুগালের অর্ধ ডজন গোল পূরণ করেন রাফায়েল লিয়াও।কোয়ার্টার ফাইনালে রামোস–রোনালদোদের প্রতিপক্ষ মরক্কো।
 
 
 
 
 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন