ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ১১ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ধর্মমন্ত্রী হিসেবে বি এইচ হারুনকে দেখতে চায় দক্ষিণাঞ্চলবাসী

রাজাপুর (ঝালকাঠি) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩০ জুন, ২০২০, ১২:০০ এএম

বতর্মানে মন্ত্রণালয়ে ধর্মমন্ত্রীর পদটি শূন্য। এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব কে পাচ্ছেন তা নিয়ে সরকারের অভ্যন্তরে চলছে নানা গুঞ্জন। এর মধ্যে ২ জনের নাম এসেছে। তারা হলেন- ঝালকাঠি-১ আসনের আ.লীগ মনোনিত এমপি বজলুল হক হারুন ও ময়মনসিংহ-৭ আসনের হাফেজ রুহুল আমিন মাদানী।
এ বিষয়ে ঝালকাঠি জেলা আ.লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ও রাজাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মো. মনিরউজ্জামান, রাজাপুর উপজেলা আ.লীগ সভাপতি এড. এএইচএম খায়রুল আলম সরফরাজ, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা মহিলা ভাইস-চেয়্যারম্যান আফরোজা আক্তার লাইজু বলেন- বি এইচ হারুন সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান, উচ্চশিক্ষিত, ধর্মীয় জ্ঞান সম্পন্ন, দক্ষ, যোগ্য, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ও বারবার দলীয়ভাবে মনোনিত এমপি। তিনি ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব সফরসঙ্গী হয়েছেন বহুবার, বর্তমানে বাংলাদেশ-সৌদি আরব সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপের চেয়ারম্যান, ঝালকাঠি জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্বসহ সবসময় দলীয় প্রধানের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করেছেন। কেন্দ্রের সকল অর্পিত দ্বায়িত্ব দলীয় স্বার্থে পালন করছেন।
আদর্শবান মানুষ হিসেবে সৌদি আরবসহ মুসলিম দেশগুলোর সাথে তার সুসম্পর্ক আছে। হজ্জ যাত্রীদের দুর্ভোগে তিনি এগিয়ে এসে হজ্জ যাত্রীদের সমস্যা সমাধান করেছেন।
তিনি সংসদে মডেল মসজিদের বিল ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান কল্যান তহবিলের বিল উত্থাপন করে সকল ধর্মের প্রতি নিরপেক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। কওমি মাদরাসাকে স্বীকৃতি প্রদানেও তার ভূমিকা আলেম সমাজে দৃশ্যমান। আমাদের এমপি মহোদয়ের যে অভিজ্ঞতা, মেধা, সততা ইতোমধ্যে প্রমানিত হয়েছে। তিনি ধর্ম মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেলে যথাযথভাবে পূর্ব অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে পারবেন। আমরাসহ দক্ষিণাঞ্চলবাসী ধর্ম মন্ত্রী হিসেবে আলহাজ বজলুল হক হারুনকে দেখতে চাই।
এ বিষয় রাজাপুর যুবলীগ সভাপতি আসলাম হোসেন মৃধা, সাধারণ সম্পাদক মো. ফকরুল ইসলাম, রাজাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল-হাসান বাপ্পী মৃধাসহ রাজাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মাহমুদুল হাসান মাহমুদ বলেন- এমপি মহোদয় ত্যাগী ও জনবান্ধব নেতা। বর্তমান বৈশ্বিক মহামারী কোভিট-১৯ কর্মহীন দুঃস্থ শ্রমজীবী, মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত ও অসহায় দলীয় কর্মীদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে নিজ অর্থায়নে রাজাপুর-কাঁঠালিয়া তার নির্বাচনী এলাকায় ৭ হাজারের অধিক পরিবারের মাঝে ত্রান ও ঈদ উপহার প্রদান করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে বি এইচ হারুন এমপিকে ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দক্ষিণাঞ্চলবাসী দেখতে চাই। এটা আমাদের দীর্ঘদিনের প্রানের দাবি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
সাকা চৌধুরী ৩০ জুন, ২০২০, ২:২৯ এএম says : 0
৩ বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান আলহাজ বজলুল হক হারুনকে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই।
Total Reply(0)
রিদওয়ান ৩০ জুন, ২০২০, ২:৩০ এএম says : 0
একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ, তাকে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বানালে আশা করি ভালো হবে।
Total Reply(0)
mahmud khan ৩০ জুন, ২০২০, ২:৩২ এএম says : 0
ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি, প্রিমিয়ার ব্যাংকের উদ্যোক্তা পরিচালকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে তিনি অত্যন্ত সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাই আশা করা যায় তিনি ধমপ্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেলে এখানেও তিনি সফল হবেন।
Total Reply(0)
কায়সার মুহম্মদ ফাহাদ ৩০ জুন, ২০২০, ২:৩৩ এএম says : 0
বাংলাদেশ ও সউদী আরবের দুই পার্লামেন্টের মধ্যে মৈত্রীর বন্ধন দৃঢ়করণে বিএইচ হারুনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা কখনও ভুলার নয়। তার এসব অবদানকে সামনে রেখে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহ্বান জানাবো।
Total Reply(0)
তাসফিয়া আসিফা ৩০ জুন, ২০২০, ২:৩৬ এএম says : 0
আমি যদিও আওয়ামী লীগ করিনা, তবুও বলতে দ্বিধা নেই, বজলুল হক হারুন এমপি যে কারণে ধমপ্রতিমন্ত্রী হওয়ার উপযুক্ত বলে আমার বিশ্বাস। বর্তমানে তিনি আওয়ামী লীগ ঝালকাঠি জেলা শাখার ১ নং সদস্য এবং রাজাপুর উপজেলা সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৮ সালে প্রথমবার এবং ২০১৪ সালে দ্বিতীয় দফা জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয় লাভ করে জয়ের হ্যাট্রিক পূর্ণ করেন। পাশাপাশি তিনি ধর্ম মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, বাংলাদেশ-সউদী আরব সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপের সভাপতি এবং জাতীয় সংসদে লাইব্রেরি কমিটির একজন সদস্য হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। কর্মজীবনে তিনি একজন সফল ব্যবসায়ী এবং এর স্বীকৃতি হিসেবে সিআইপি নির্বাচিত হন।
Total Reply(0)
কামাল রাহী ৩০ জুন, ২০২০, ২:৩৭ এএম says : 0
মধ্য প্রাচ্যের দেশ সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রায় ৪৪ বছরের। দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক এখন অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে সবচেয়ে ভালো ও শক্ত অবস্থানে রয়েছে। কয়েকবছর বন্ধ থাকার পর ২০১৬ থেকে আবারো বাংলাদেশ থেকে ব্যাপক হারে কর্মী নেয়া শুরু করে সৌদি আরব। কোটা বৃদ্ধির পর এছর রেকর্ড সংখ্যক প্রায় একলাখ ২৭ হাজার বাংলাদেশি হজ পালন করেছেন। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মডেল মসজিদ নির্মাণসহ বিভিন্ন খাতে এসেছে সৌদি সরকারের নতুন করে অনুদান। এসব কিছুর পেছনে মাননীয় সংসদ সদস্যের অনন্য অবদান রয়েছে। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ হারুনসাবকে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী বানানো হোক।
Total Reply(0)
মুফতী হেদায়েতুল্লাহ ফয়েজী ৩০ জুন, ২০২০, ১১:০২ এএম says : 0
বজলুল হক হারুন সাহেব ব্যক্তিগত ভাবে অনেক অনেক ভালো মনের মানুষ। তার তুলনা সে নিজেই। আমার যানা মতে তার নির্বাচনী এলাকার মানুষকে অনেক সহযোগীতা করেছেন। এলাকার উন্নয়ন করেছেন সীমাহীন। তিনি যোগ্য বিচক্ষন,নিস্বার্থবান,নির্লোভ,অহংকারবিহীন এই সমাজ সেবক সংসদ সদস্য কে ধর্ম মন্ত্রী করা হলে ইসলামের দেশের মানুষে জন্য কল্যান হবে ইনশাআল্লাহ।
Total Reply(0)
মোঃমাহমুদুল হাসান মাহমুদ ১ জুলাই, ২০২০, ১:৩৫ এএম says : 0
ধর্মমন্ত্রীর দাবী শুধু আমার একার কথা নয় গোটা ঝালকাঠিসহ দক্ষিনাঞ্চলবাসীর প্রানের দাবী। আমাদের এমপি বজলুল হক হারুন মহোদয় সৎ ও জনবান্ধব নেতা ৭৫ পরবর্তী সময়ে যখন এ অঞ্চলের মানুষজন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অত্যাচারে দিশেহারা যা পরবর্তীতে ২০০১ চারদলীয়জোট সরকারের আমলে আরো বেড়ে যায় তখনই শান্তির বার্তা বাহক বজলুল হক হারুন এমপি"র হস্তক্ষেপে এ অঞ্চলের সাধারন মানুষের জান মালের নিরাপত্তার নিশ্চিয়তা পেয়েছে।বর্তমানে ও এখানকার সাধারন মানুষ সুখে শান্তিতে বসবাস করছে। বর্তমানে বৈশ্বিক মহামারী কোভিট-১৯ এর কারনে হোম কোয়ারান্টাইনে থাকা কর্মহীন দুস্থ শ্রমজীবি,মধ্যবিত্ত,নিম্নমধ্যবিত্ত ও অসহায় দলীয় কর্মীদের মাঝে বঙ্গবন্ধু কন্যা মানবতার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে আমাদের সংসদ সদস্য মহোদয় নিজ অর্থায়নে রাজাপুর-কাঁঠালিয়া তার নির্বাচনী এলাকায় ৬ হাজারের অধিক পরিবারের মাঝে ত্রান ও ঈদ উপহার প্রদান করেছেন। শুধু তাই না এ অঞ্চলের মসজিদ ও মন্দির উন্নয়নে তার আর্থিক সহযোগিতা শুরু থেকেই চলমান রয়েছে। আমরা তাকে ধর্মমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই এটা আমাদের ন্যায্য দাবী।আশাকরি মাননীয় প্রধান মন্ত্রী আমাদের আশা পুরন করবেন।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন