ঢাকা রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ বৈশাখ ১৪২৮, ০৫ রমজান ১৪৪২ হিজরী

প্রবাস জীবন

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি গৃহপরিচারিকা হত্যার ‘যুগান্তকারী’ বিচার সউদি আরবে!

মোহাম্মদ আবদুল অদুদ | প্রকাশের সময় : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৯:৩৮ এএম

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি গৃহপরিচারিকা হত্যার ‘যুগান্তকারী’ ও ‘দৃষ্টান্তমূলক’ বিচার হলো সউদি আরবে । সোমবার এক বাংলাদেশি গৃহকর্মী আবিরন বেগম আনসারকে হত্যার কারণে তিন সউদী নাগরিককে মৃত্যুদন্ড দেন রিয়াদের একটি আদালত। ২০১৯ সালে ব্যাপক মারধরের কারণে মৃত ৪০ বছর বয়সী ওই নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করে সউদী আরবের পুলিশ।

সউদি গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা যায়, গেলো সপ্তাহে আবেদীনের পরিবারের সদস্যদের কাছে মৃত্যুদন্ড না আর্থিক ক্ষতিপূরণ চান তারা জানতে চেয়ে লিখিত আবেদন করতে বলেন আদালত।তারই ভিত্তিতে রায় ঘোষণা করা হয়। অপরাধীরা হলেন বাসেম সালেম তার স্ত্রী আয়শা আল জিজানি ও তাদের সন্তান ওয়ালিদ বাসেম সালেম। ময়নাতদন্ত শেষে ৭ মাস পর বাংলাদেশে তার মৃতদেহ ফেরত পাঠানো হলে ছিল না সনাক্তের উপায়।

রিয়াদে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মামলার মূল আসামি আবিরনের নিয়োগকর্তা আয়েশা আল-জিজানিকে রবিবার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হত্যা করার দায়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

দূতাবাসের শ্রমকল্যাণ শাখা কর্তৃক প্রস্তুত প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে রিয়াদের সউদি ফৌজদারি আদালত-৬ আয়েশার স্বামী বাসেম সালেমকেও আবিরনের চাকুরীজীবি বলে তিন বছর দুই মাস কারাদণ্ড দিয়েছে এবং তাকে ৫০ হাজার সউদি রিয়াল জরিমানা করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অভিবাসী শ্রমিকের অসহযোগিতা এবং তার চিকিৎসার ব্যবস্থা না করার অভিযোগে আদালত নিয়োগকারীদের পুত্র ওয়ালিদ বাসেম সালেমকে সাত মাসের জন্য কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে প্রেরণের আদেশ দিয়েছেন।

জানা যায়, ২০১৭ সালে সউদি আরব গিয়েছিলেন আবিরন। তাকে তার নিয়োগকর্তার বাড়িতে নির্যাতন করা হয়েছিল এবং ২৪ শে মার্চ, ২০১৯ এ তাকে হত্যা করা হয়েছিল। মৃতদেহ বাড়িতে পাঠানোর আগে সাত মাস রাজ্যের এক শবঘরে রাখা হয়েছিল। এদিকে, বাংলাদেশে অভিবাসী অধিকার নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংস্থা এই রায়টিকে "অনুকরণীয়" এবং "যুগান্তকারী" রায় বলে অভিহিত করেছে এবং বাংলাদেশী অভিবাসী শ্রমিকদের উপর নির্যাতন ও নির্যাতনের ঘটনাগুলো নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ এবং পর্যবেক্ষণ করার জন্য বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ মিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

দূতাবাসের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বাসমকে প্রমাণ নষ্ট করার জন্য, গৃহকর্মীর জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা না করা এবং আবাসিক চত্বরের বাইরে তাকে অবৈধভাবে চাকরি দেওয়ার জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছিল। "কিসাস" বা হত্যার বদলে হত্যার ন্যায়বিচারের রায় দেওয়ার ক্ষেত্রে সউদি আদালত উল্লেখ করেছে যে, যদি কোনও পক্ষই এই রায় দ্বারা ক্ষুব্ধ হন, তবে তারা ৩০ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট আদালতে আপিল করতে পারবেন। তিন আসামি রবিবার আদালতে জেল থেকে কার্যত শুনানিতে অংশ নিয়েছিলেন। বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব শফিকুল ইসলাম শুনানিতে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। এর আগে গত ৫ জানুয়ারি আদালত তিন আসামির জামিন আবেদন নাকচ করে দেন।

প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী গতকাল একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির পাশাপাশি প্রতিবেদনের একটি অনুলিপি গণমাধ্যমে প্রচার করেছেন। মন্ত্রী জানিয়েছে যে, সরকার অভিবাসী শ্রমিকদের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার জন্য সব ধরণের সহায়তা প্রদান করবে।

রবিউল নামে স্থানীয় এজেন্টের সহায়তায় খুলনার পাইকগাছা থেকে আবিরন রাজধানীতে একটি নিয়োগকারী সংস্থার মাধ্যমে সউদী আরব চলে যায়। তার পরিবার অভিযোগ করেছে যে, আবিরন তার গৃহকর্মীর বাড়িতে দীর্ঘঘদিন ধরে গুরুতর শারীরিক নির্যাতন সহ্য করেছে। শেষবারের মতো যখন সে তার বোনের সাথে কথা বলছিল, তখন তিনি তার উপর নৃশংস নির্যাতনের কথা বলেছিলেন। আটজন লোক তখন বাড়িতে বাস করছিলেন। নিয়োগকর্তারা তাকে খাবার দিতেন না এবং এমনকি তার গায়ে গরম পানি ঢেলে দিতেন। একপর্যায়ে তার পরিবার তার সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। আবিরনের মরদেহ ওয়েজ আর্নার্স ওয়েলফেয়ার বোর্ডের মাধ্যমে ২২ শে অক্টোবর, ২০১৯ এ বাংলাদেশে আনা হয়েছিল। তার ডেথ সার্টিফিকেটে উল্লেখ করা হয়েছিল যে তাকে খুন করা হয়েছে।

পরে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন (এনএইচআরসি) এর সদস্য নমিতা হালদারের নেতৃত্বে একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করে। ২৫ নভেম্বর, নমিতা পাইকগাছায় আবিরনের বাড়ি গিয়েছিলেন এবং ভিকটিমের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেছিলেন। তিনি রিক্রুটিং এজেন্সি, মন্ত্রণালয় এবং দূতাবাসগুলোর সাথেও কথা বলেছিলেন এবং সে বছরের ১৫ ডিসেম্বর একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন জমা দেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, আবিরনকে নির্যাতন করে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। এতে এজেন্ট, নিয়োগকারী সংস্থা এবং সরকারী কর্মকর্তাদের অবহেলার বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়।

খুলনায় মানবপাচার রোধ ও দমন আইন, ২০১২ এর আওতায় খুলনায় একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছিল। মামলায় রবিউলকে প্রধান আসামি করা হয়। তখন এনএইচআরসি আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ, হত্যার ক্ষতিপূরণ এবং অভিযুক্তকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির সুপারিশ করেছিল। আবিরনের পরিবারের কাছ থেকে পাওয়ার অব অ্যাটর্নি পাওয়ার পরে, রিয়াদে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস তার পরিবারের প্রতিনিধি সউদি আদালতে উপস্থিত হয়েছিল এবং গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর বিচার শুরু হয়েছিল।
এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি (বিএনডাব্লুএলএ) এই রায়কে একটি "যুগান্তকারী" বলে বর্ণনা করেছে। রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে সউদি আরবে বাংলাদেশী অভিবাসী শ্রমিকদের নির্যাতন ও হত্যার ঘটনায় বিচার শুরু করার এবং রায় দেওয়ার মাত্র কয়েকটি উদাহরণ রয়েছে। বিবৃতিতে লেখা হয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে এ জাতীয় যুগান্তকারী রায় শ্রমিকদের মর্যাদাকে ধরে রাখতে এবং তাদের অধিকার নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক হবে। বিএনডব্লিউএলএ রায় দ্রুত কার্যকর করার আহ্বান জানিয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন