সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮, ২০ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

খেলা ফিচার

রাজুর কীর্তি

| প্রকাশের সময় : ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

টি-২০ ক্যারিয়ারে  ইতোপূর্বে কোন ম্যাচে ৩ উইকেটের বেশি উইকেট ছিল না তার। নিজের সেরা পারফরমেন্স ছিল ৩/২০। সেই আবুল হাসান রাজুই প্রথম স্পেলে অস্ট্রেলিয়ার রিকি ওয়ালেসকে ফিরিয়ে অধিনায়ক ড্যারেন স্যামীকে দেন আস্থার প্রতিদান। সেই সুবাদে শ্লগে রাজুকে ২ ওভার (১৮ এবং ২০তম) বোলিংয়ের দায়িত্ব দেন রাজশাহী কিংস অধিনায়ক। রাজুর হাতে বল তুলে দিয়ে খুলনা কিংসের স্কোরের লাগাম টেনে ধরার নির্দেশনা ছিল ড্যারেন স্যামীর। তবে অধিনায়কের দাবির চেয়েও বেশি কিছু করে দেখান এই পেস বোলার। ১৮তম ওভারের প্রথম বলে খুলনা কিংসের অধিনায়ক মাহামুদুল্লাহকে লং অনে এবং পরের বলে অলক কাপালীকে মিড উইকেটে ক্যাচে পরিণত করেন। ২০তম ওভারে আরিফুলের হাতে প্রথম বলে ছক্কা খেয়েও মনোবল হারাননি। দ্বিতীয় বলে সেই আরিফুল দিয়ে এসেছেন থার্ডম্যানে ক্যাচ, ৪র্থ বলে শফিউল বোল্ড। তার ভয়ংকর দ্বিতীয় স্পেলটি (২-০-১২-৪) মনে করিয়ে দেয় তিন বছর আগে টেস্ট অভিষেকে ১০ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে সেঞ্চুরি করার সেই বিশ্বরেকর্ডের কথা।
তবে তিন ভার্সনের ক্রিকেটের কোনটাতেই বল হাতে নিজের কার্যকরিতা পারেননি দেখাতে। ২০১৫’র এপ্রিলের পর থেকেই তাই দলের বাইরে রাজু। টুয়েন্টি-২০ ক্রিকেটে ইতোপূর্বে নিজের সেরা পারফরমেন্স ছিল ৩/২০। বিপিএল টি-২০তে সেই রাজুই কি না দেখা পেলেন ৫ উইকেট! বিপিএল’র প্রথম তিনটি আসরে ৫ উইকেটের ইনিংস ছিল মোট ৪ জনের। ২০১২ সালে ঢাকা গ্লাডিয়েটর্সের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক ইনিংসে দূরন্ত রাজশাহীর পাকিস্তানী পেসার মোহাম্মদ সামীকে (৫/৬) দিয়ে শুরু, ২০১৫ সালে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে বরিশাল বুলসের ক্যারিবিয়ান পেসার কেভন কুপারের (৫/১৫), সিলেট সুপার স্টারর্সের বিপক্ষে সে বছর বরিশাল বুলস পেসার আল আমিন (৫/৩৬) এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে রংপুর রাইডার্সের তিসারা পেরেরার (৫/২৬) পাশে এবার জায়গা পেলেন রাজশাহী কিংসের আবুল হাসান রাজু (৫/২৮)। (পরে আইপিএল অভিষেকেই ৫ উইকেট দখলের কীর্তি দেখান আফিফ হোসেন)। বিপিএলে ইনিংসে ৫ উইকেটে আল আমিনের পর দ্বিতীয় বাংলাদেশী রাজু।
তবে রাজু নয় সেদিনের আসল নায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ৬ বলে ৭ রান, হাতে ৩ উইকেটÑএমন সহজ সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়েও সেদিন ৩ রানে হেরে বসে রাজশাহী কিংস। শেষ ওভারে  খুলনা টাইটান্সের অবিশ্বাস্য এই জয়ের নায়ক অধিনায়ক মাহামুদুল্লাহ! ওই ওভারে ৩ রানে তিন তিনটি শিকারে দলকে জয়ের উৎসবে ভাসান এই অফ স্পিনার।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন