রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কলাপাড়ায় টিসিবির পণ্যে হরিলুট, প্রকৃত কার্ডধারীরা পাচ্ছেনা সুবিধা, বিতরনে নয়-ছয়ের অভিযোগ

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি | প্রকাশের সময় : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৩২ পিএম

কলাপাড়ায় টিসিবির পণ্য বিতরনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ। প্রতিমাসে প্রকৃত কার্ড ধারীরা পণ্য না নিয়েই খালিহাতে ফিরছেন অনেকে। অভিযোগ রয়েছে নির্দ্দিষ্ট সময় পর্যন্ত দেয়া হচ্ছেনা পণ্য অথচ প্রভাবশালীরা বিনা কার্ডে এ পন্য নিয়ে যাচ্ছে অহরহ। অনিয়মের বিষয়ে জনপ্রতিনিধিরা দিচ্ছেন দায়-সারা যুক্তি। বৃহস্পতিবার গনমাধ্যম কর্মীদের সংগে এবিষয়ে আইন অনুযায়ী ব্যাবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে গনমাধ্যমকর্মীদের নিকট টিসিবি পন্য বিতরনে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ধরেন টিসিবির পণ্য নিতে আসা ১৯২ নং কার্ডধারী সুনিল চন্দ্র, ৫০৬ নং কার্ডের রাজ্জাক হাং, ৫৩০ নং এর শাহীন হাং, ১৬১ নং কার্ডের সোহাগ সিকদার, ১৯৯ নং কার্ডের খলিল শিকদার, ৭৬ নং কার্ডের মজিবর গাজী, ১৪ নং কার্ডের এসহাক, ৭৫ নং কার্ডের সোলায়মানসহ অসংখ্য কার্ডধারীরা বিকাল ৪ টা পর্যন্ত অপেক্ষা করে কাউকে খুজে না পেয়ে পণ্য না নিয়েই চলে যেতে বাধ্য হন। এসময় তারা তাদের বৈধ কার্ড উচিয়ে এসব অনিয়মের প্রতিবাদ করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের শেখকামাল সেতু টোলপ্লাজা সংলগ্ন টিসিবির পণ্য বিতরন করেন ডিলার ও নির্বাচিত ইউপি সদস্যরা। প্রতিমাসেই এই টিসিবির পণ্য এখান থেকেই বিতরন করা হয়। কিন্তু এই টিসিবির পণ্য বিতরনে অনিয়মের যেনো শেষ নেই। পণ্য বিতরণের সময় নির্দ্দিষ্ট তারিখ ও সময় তাদের জানানো হয় না। বিতরনের দু/এক ঘন্টা আগে জানানো হয়। ফলে সময় মত অনকেই নেয়ার সুযোগ পান না। এছাড়াও প্রকৃত কার্ডধারী উপস্থিত থাকতেও কার্ড ব্যাতিত লোকদের পণ্য বিতরন করা হয়। বিতরণের দিন সকালে নির্দ্দিষ্ট সময় থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত বিতরনের নিয়ম থাকলেও দুপুর ১ টা থেক ২ টার মধ্যে তা শেষ করে চলে যায়। এতে সরকারের দেয়া সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রকৃত অসহায়, ক্ষুধার্থ ও নিম্ন আয়ের মানুষজন।

অভিযোগের বিষয়ে মহিলা ইউপি সদস্য মমতাজ বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন কার্ডধারীরা সময় মত নিতে না আসলে আমরা কি করবো।

অন্যদিকে বিষয়ে ইউপি সদস্য আফজাল হোসেনের কাছে বার বার একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

নীলগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মো. বাবুল মিয়া বলেন, আমি পটুয়াখালীতে আছি, বিষয়টি খোঁজ-খবর নিয়ে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, প্রকৃত কার্ডধারীরা যাতে পণ্য পায় এবং নির্দ্দিষ্ট সময় পর্যন্ত যাতে পণ্য বিতরন করা হয় তার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যাবস্থা গ্রহন করবেন বলে আশ্বাস দেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন