ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

অনিশ্চয়তার মধ্যেই জাপানে পৌঁছাল অলিম্পিক মশাল

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০২০, ১২:০২ এএম

২০২০ সালের ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’, অর্থাৎ অলিম্পিক গেমস নিয়ে অনিশ্চয়তা এখনো কাটেনি। ব্যাপকহারে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় টোকিও অলিম্পিক নিয়ে অনিশ্চয়তার কথা বলছেন অনেকে। তবে সময়মতোই এই বিশ্ব ক্রীড়াযজ্ঞ আয়োজনের ব্যাপারে প্রত্যয়ী জাপান। এর মধ্যেই গতকাল দেশটিতে পৌঁছাল অলিম্পিক মশাল।

মশাল গ্রহণের অনুষ্ঠান ছিল অনাড়ম্বর। যদিও আয়োজনের কোনো কমতি ছিল না জাপান সরকারের। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থমকে দিয়েছে সব। একটি চার্টার্ড বিমানে করে ২০১১ সালের সুনামিতে বিপর্যস্ত মিয়াগি রাজ্যের মাতসুশিমা এয়ার বেইজে নামনো হয় অলিম্পিক মশাল। বিমান থেকে মশাল গ্রহণ করেন জাপানের সাবেক দুই পদক জয়ী অলিম্পিয়ান সোওরি ইয়োশিদা ও তাদাহিরো নমুরা।

এরপর তারা মশাল নিয়ে যান চেরি ফুলে সুসজ্জিত মঞ্চে থাকা অতিথিদের সামনে। এ সময় দুইশোর মতো স্থানীয় শিশু অলিম্পিক মশালকে স্বাগত জানায়। অলিম্পিক মশালের আনুষ্ঠানিক রিলে শুরু হবে ২৬ মার্চে ফুকুশিমার জে-ভিলেজ স্পোর্টস কমপ্লেক্স থেকে।

স‚চি অনুযায়ী ২৪ জুলাই পর্দা উঠার কথা টোকিও অলিম্পিকের। শেষ হওয়ার কথা ৯ আগস্ট। কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মুখে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই ক্রীড়া ইভেন্ট পিছিয়ে দেওয়ার দাবি তুলেছেন অনেকে। যদিও সময়মতোই অলিম্পিক আয়োজনের ব্যাপারে আশাবাদী জাপান কর্তৃপক্ষ।
টোকিও অলিম্পিক স্থগিত করা উচিৎ বলে মন্তব্য করেছেন জাপান অলিম্পিক কমিটির (জেওসি) একজন জেষ্ঠ সদস্য। করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় টোকিও ২০২০ অলিম্পিক পিছিয়ে দেওয়ার যে দাবি উঠেছে তার সঙ্গেও সুর মিলিয়েছেন তিনি। জেওসির নির্বাহী কমিটির সদস্য কওরি ইয়ামাগুচি শুক্রবার প্রকাশিত হওয়া দৈনিক নিক্কেইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতির কারণে এটি স্থগিত করা উচিৎ। অ্যাথলেটরাও ভালভাবে প্রস্তুতি নিতে পারছে না।’

অনিশ্চয়তা এবং লাভ-ক্ষতির হিসাব
প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের জেরে পরিস্থিতি যাই হোক, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি) অবশ্য এখনও বলে যাচ্ছে ২৪ জুলাইয়েই গেমস শুরু হবে। আর ব্রিটিশ প্রচারমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স সংস্থার প্রধান সেবাস্টিয়ান কো বলেছেন, ‘আইওসির সিদ্ধান্ত নিয়ে এখনই আন্দাজের উপর কোনও মন্তব্য করবেন না। বিশেষত যখন এখনও আমাদের হাতে চার মাস সময় পড়ে রয়েছে।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘যে কোনও কিছুই হতে পারে।’ এখন দেখা যাক কেন এখনো অনিশ্চয়তা আর আসর হলে বা না হলে কার কত ক্ষতি হতে পারে।
কবে শুরু? শুরু হওয়ার কথা আগামী ২৪ জুলাই থেকে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে মৃত্যুর মিছিল শুরু হওয়ায় আসরের আয়োজন নিয়েই দেখা দেয় অনিশ্চয়তা।

আইওসি এখনো অনড়
গত সোমবার বেশ কিছু দেশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক আলোচনা করেছে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি)। আলোচনা শেষে এক বিবৃতিতে আইওসি বলেছে, ‘গেমসের চার মাসের বেশি বাকি থাকতে কঠোর কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রয়োজন নেই। এখনই কিছু অনুমান করতে যাওয়া হবে অগঠনম‚লক।’ আয়োজক জাপানের প্রধানমন্ত্রী আগেই বলেছেন, তার দেশ চায় সময়মতো অলিম্পিক আয়োজন করে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানবজতির জয় ঘোষণা করতে।

কেন অনড় আইওসি?
ম‚ল কারণ-টাকা। অলিম্পিক গেমস না হলে বা পিছিয়ে গেলে আয়োজক জাপান, আইওসি, ক্রীড়াবিদ, স্পন্সর এবং প্রচারের সত্ত্ব পাওয়া টিভি চ্যানেল-সবারই বিশাল অঙ্কের ক্ষতি হবে। তাই আগেই ‘নেতিবাচক’ সিদ্ধান্ত নিতে সবাই নারাজ।

কেন ক্ষতি?
১১ হাজার ক্রীড়াবিদের এই আয়োজন সার্থক করতে প্রচুর অর্থ ব্যয় করেছে সব পক্ষ। আয়োজক জাপান, আইওসি এবং অংশগ্রহণেচ্ছু দেশগুলো অনিবার্য কারণে আসর পেছাতে বা বাতিল করতে বাধ্য হলে ইনস্যুরেন্স কোম্পানির কাছে ক্ষতিপ‚রণ দাবি করতে পারবে। আগেভাগে পেছানো বা বাতিল করা হলে ক্ষতিপ‚রণ দেবে না ইনস্যুরেন্স কোম্পানি।

বড় ক্ষতির আশঙ্কায় জাপান
টোকিও অলিম্পিকের আয়োজক কমিটি গত ডিসেম্বরে জানিয়েছিল, আসরের আয়োজনে তাদের ১১৫০ কোটি ডলারের মতো খরচ হয়ে গেছে। আয়োজকরা তখনই বলেছিল, ম্যারাথন টোকিও থেকে সাপ্পোরোতে সরিয়ে নেয়াসহ আরো কিছু কাজে যে ব্যয় হবে তা হিসেব করা হয়নি।

অলিম্পিক না হলে স্পন্সরদের সর্বনাশ
স্পন্সর কোম্পানিগুলোর ক্ষতির দিকটাও মাথায় রাখতে হচ্ছে আয়োজক কমিটি এবং আইওসিকে। টয়োটা, ব্রিজস্টোন, প্যানাসনিক এবং স্যামসাংয়ের মতো প্রতিষ্ঠান প্রচুর বিনিয়োগ করেছে এই আসরে। জাপানের কোম্পানিগুলোই নাকি ২৭৫ কোটি ডলারেরও বেশি খরচ করেছে।

আইওসির আর্থিক দুশ্চিন্তা
অলিম্পিক আয়োজনে সর্বোচ্চ ২৩০০ কোটি ডলার ব্যয় হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এমন মহাযজ্ঞে আইসির অবদান সাত কোটি ৪০ লক্ষ ইউরো।

ক্রীড়াবিদদের ক্ষতি
প্রতি চার বছর পর আসে একটা সুযোগ। ক্রীড়াবিদদের প্রস্তুতিও চলে চার বছর ধরে। আসর না হলে সব কষ্ট মাটি, সব স্বপ্ন ধুলিস্যাৎ।
আসর হলে কী সমস্যা? সবচেয়ে বড় ঝুঁকি দর্শক এবং ক্রীড়াবিদদের নভেল করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার।

অলিম্পিক বাতিলের অতীত
১৯১৬, ১৯৪০ আর ১৯৪৪ - এই তিনবার অলিম্পিক হয়নি। সেই তিনবার না হওয়ার কারণ ছিল বিশ্বযুদ্ধ।

পরে হলে কবে?
জুলাইতে না হলে আগামী অক্টোবর মাসে আয়োজন করা যেতে পারে অলিম্পিক গেমস।তখন হলে সমস্যা শুধু যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন চ্যানেল এনবিসির। কারণ, সেপ্টেম্বরে শুরু হবে এনএফএল। বাস্কেটবলের এই আকর্ষণীয় আসরের সম্প্রচারসত্ত্ব পেয়েছে এনবিসি। অবশ্য বাতিল না করলে আগামী বছর বা তার পরেও হতে পারে অলিম্পিক। তাতে অন্য ধরনের জটিলতার আশঙ্কা থাকলেও সেটাও হবে মন্দের ভালো।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন