শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১ আষাঢ় ১৪২৯, ২৪ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

ধর্ম দর্শন

মাওলানা সৈয়্যদ মুহাম্মদ আজিজুর রহমান আলহাজ্ব হাফিজ আলাউদ্দিন ছাহেব (রাহঃ)

| প্রকাশের সময় : ১৮ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

সুলতান মাহমুদ খান : জন্ম পরিচয়ঃ প্রাকৃতিক এক উজ্জ্বল নীলা ভ‚মি ছায়া নিবাসে ১৯৩০ সালে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার ৩নং নিজ বাহাদুরপুর ইউনিয়নের চান্দগ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন আলাউদ্দিন ছাহেব (রহঃ)। তার পিতার নাম মোঃ ইউসুফ আলী মাতা জোবেদা খাতুন হাফিজ ছাহেব (রহঃ) পরিবারে ২ ভাই ও ৩ বোন।
শৈশব কালঃ- আলাউদ্দিন ছাহেব শিশুকাল থেকেই ছিলেন শান্ত ধর্মানুরাগী অত্যন্ত গম্ভীর, চলাফেরা আচার ব্যবহার অত্যন্ত চমৎকার ছিলো। তার পিতা তাকে মসজিদে প্রায় সময়ে নিতে ভ‚লতেন না। তার পিতা মোঃ ইউসুফ আলী অত্যন্ত পরহেজগার লোক ছিলেন। আলাউদ্দিন ছোটবেলা থেকেই দ্বীন ইসলামের প্রতি দূর্বল ছিলেন। আলাউদ্দিন পিতার তত্ত¡াবধানে এবং উস্তাতদের নেক সু-দৃষ্টির ফলে ছোটকাল থেকে বেশ ধর্মনুরাগী হয়ে উঠেন। বাল্যকাল থেকে তিনি ছিলেন অত্যন্ত শান্ত স্বভাবের একজন মানুষ। অন্যন্য বালকের মত তিনি ছিলেন না। বাল্যকাল থেকে একজন ধর্মপরায়ন ছিলেন। মুরব্বীয়ানদের সাথে আলাপ থেকে জানা যায়, আলাউদ্দিন গ্রামের স্কুল চান্দগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। পিতা মাতা ও মক্তবের শিক্ষক মরহুম হাফিজ মৌলভী আরশদ আলী (সারোপারী) ছাহেবের অনুপ্রেরণায় স্থানীয় আবদে বারী হিফজুল কোরআন মাদ্রাসায় ভর্তি করা হয়। মাদ্রাসায় উপস্থিতির ব্যাপারে তার বিরল অধ্যবসায় কিংবদন্তীর মত আজও আমাদের কাছে অভিনব মনে হয়। চান্দগ্রামী বড় হাফিজ আব্দুল বারী (রহঃ) এর কাছে হিফজ শুরু করেন। তার উস্তাদ ওলিয়ে কামিল হাফিজ কারী আব্দুর বারী বড় হাফিজ ছাহেব চান্দগ্রামী (রহঃ) হযরত আল্লামা আব্দুর রউফ করমপুরী (রহঃ) ছাত্র ছিলেন। অত্যন্ত কঠোর পরিশ্রম করে সফলতার সহিত হিফজ সমাপ্ত করেন। তার উস্তাদ চান্দগ্রামী বড় হাফিজ ছাহেব (রহঃ) অত্যন্ত ¯েœহ মায়া করতেন চান্দগ্রামী (রহঃ) হজ্জ বা সফরে চলে গেলে আলাউদ্দিন ছাহেব (রহঃ) কে তার স্থলা ভিষিক্ত করতেন। জেলায় বিভিন্ন জায়গায় মসজিদ ইমাম হিসাবে দায়িত্বরত ছিলেন। দুনিয়ার প্রতিকোন লোভ লালসা ছিলো না অতি সহজ সরল ভাবে জীবন যাপন করেছেন। পোষাক পরিধান করতেন খুব স্বাভাবিক।
আমল আখলাকঃ- আলাউদ্দিন (রহঃ) পবিত্রতাকে খুব গুরুত্ব দিতেন। কঠিন বার্ধক্যে উপনীত হয়ে নামাজের আদব সমূহ রক্ষার চেষ্টায় তিনি বিন্দুমাত্র ত্রæটি করেননি। জামায়াতে নামাজ পড়া ছিল তার অভ্যাস। জিকির আযকার, মোরাকাবা, মোশাহাদা নিয়মিত চলত। মোট কথা তিনি ছিলেন বিবিধ গুণের অধিকারী।  
কর্মজীবন, পবিত্র কোরআনের খেদমতঃ- তিনি সর্বপ্রথম ছাতকের বুরাইয়া চলে যান এবং কিছুদিন হিফজ বিভাগে প্রধান শিক্ষক হিসাবে কোরআনের খেদমত করেন। তার মুর্শিদ আল্লামা ফুলতলী ছাহেব (রহঃ) নির্দেশে তিনি সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার ঈসাপুর হাফিজিয়া মাদ্রাসায় প্রধান হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরবর্তিতে বিশ্বনাথের সিংগের কাচ মাদ্রাসায় দায়িত্বপান।
মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাঃ ১৯৮৯ ইং হতে সিলেট জেলার বৈরাগীবাজার আহমদিয়া সুন্নিয়া হাফিজিয়া নামকরণ করে একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। সেখানে তিনি ইন্তেকালের আগপর্যন্ত কোরআনের খেদমত করে গেছেন। তার রয়েছে দেশ বিদেশে অসংখ্যা ছাত্র ও ভক্ত হাফিজ আলাউদ্দিন (রহঃ) চান্দগ্রাম নিজ বাসভবনে আসতাম। তিনি প্রায়ই সময় কি জেন পড়তেন হাতে থাকত তসবিহ্ কোরআন হাদিসের কথা বলতেন। তিনি একজন আশিকে রাসূল একজন নিসন্দেহ ওলি। তাহাজ্বদ, কোরআন, তেলাওয়াত ও নফল এবাদত নিয়ে মসগুল ছিলেন। কোনোদিন ব্যক্তিগত বা পারিবারিক কোনো কথা আমি বলতে শোনিনি তিনি সবসময় কোরআন হাদিস নিয়ে কথা বলতেন।
শাদীঃ- ১৯৬০ সালে পারিবারিক জীবনে বিয়ানীবাজার উপজেলার পাতন গ্রামের মোঃ ফরমান আলী সাহেবের সর্বকনিষ্ঠ মেয়ে হাফিজা ছুরতন নেছাকে জীবন সঙ্গিনী করেন।
ছেলেমেয়েঃ- তার উদরে ৪ ছেলে ও ২ মেয়ে। মৌলভী হাফিজ মোঃ আলাউদ্দিন জীবনের একটা স্বপ্ন ছিলো ছেলেদের আলেম বানাবেন তার স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য ছেলেদেরকে মাদ্রাসা শিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলেন।  (১) হাফিজ আব্দুল্লাহ সিদ্দিকী, বর্তমানে ইংল্যান্ডে, (২) কাজী মোঃ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী, (৩) হাফিজ মৌলানা মোঃ আব্দুর কাদির সিদ্দিকী, বর্তমানে ইংল্যান্ডে, (৪) হাফিজ মোঃ আব্দুল মালিক সিদ্দিকী, বর্তমানে ইংল্যান্ডে, ২ মেয়ে ক্বারী/ কারিয়া যথাক্রমে- (৫) মোছাঃ কুলসুমা বেগম, বিবাহিত, বর্তমানে ইংল্যান্ডে, (৩) মোছাঃ হানিফা বেগম, বিবাহিত, বর্তমানে ইংল্যান্ডে এবং ২ মেয়েকে ক্বারীয়ানা শিক্ষায় শিক্ষিত করেন।
তাসাওউফের উচ্চ শিক্ষাঃ- হাফিজ আলাউদ্দিন ছাহেব (রহঃ) ফুলতলী ছাহেব ক্বিবলাহ (রহঃ) এর কাছে বায়াআত গ্রহণ করেন এবং ফুলতলী (রহঃ) তাকে মুরিদ করে নেন ও রুহানী তাওয়াজ্জহ দান করেন। এক পর্যায়ে আলাউদ্দিন ছাহেব আত্মহারা হয়ে পড়েন। ফুলতলী ছাহেব ক্বিবলাহ তাকে চিশতিয়া কাদেরিয়া নকসবন্দিয়া মোজাদ্দিদিয়া ও মুহাম্মদিয়া তরিকার খাছভাবে সনদ প্রদান করেন।
হজ্জ্ব পালনঃ- হাফিজ আলাউদ্দিন ছাহেব (রহঃ) জীবনে চার বার পবিত্র হজ্জ্ব পালন করেন।
আকিদা বিশ্বাসঃ- হাফিজ মোঃ আলাউদ্দিন (রহঃ) আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আকিদায় বিশ্বাসী ছিলেন। ছিলেন একজন আশিকে রাসূল (সাঃ)।
ইন্তেকালঃ- অসংখ্য দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। উস্তাদুল আজম হাজার হাজার গণ মানুষের মুকুট আলহাজ্ব হাফিজ মোঃ আলাউদ্দিন ছাহেব (রহঃ) গত ২১শে মার্চ ২০১৫ইং রোজ শনিবার সন্ধ্যা ৬.৩৫ মিনিটের সময় লক্ষ মানুষকে কাঁদিয়ে নিজ বাসবভনে ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহির রাজিউন। ২২শে মার্চ ২০১৫ইং রোজ রবিবার বাদ আসর তার গ্রামের বাড়িতে বড়লেখা উপজেলার চান্দগ্রামে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। তার এই মৃত্যুতে যে শূণ্যতায় সৃষ্টি হয়েছে তা কোনো ভাবেই পূরণ হওয়ার নয়। প্রতি বছরের ২১শে মার্চ নিজ বাড়ী চান্দগ্রামে মাজার শরীফ প্রাঙ্গনে দিনভর বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে ইছালে সাওয়াব অনুষ্ঠিত হয়। দুর-দুরান্ত থেকে ভক্ত অনুরক্ত আশিকানদের উপস্থিতি ঘটে এই মাহফিলে। ঈসালে সাওয়াব মাজার জিয়ারত মিলাদ জিকির দোয়া দুরুদ ব্যস্ত সময় পার করেন। অন্যদিকে বিশিষ্ট উলামায়ে ক্বেরামরা ওয়াজ নছিহতের মাধ্যমে তার কর্মময় জীবনের নানাদিক নিয়ে আলোচনা করেন। সর্বশেষে মিলাদ কিয়াম দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় বাদ ফজর দোআ অনুষ্ঠিত হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps