মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ০১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মুহাররম ১৪৪৪

শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ইসলাম

আরশে মোআল্লায় যার পবিত্র নাম লিখিত

খালেদ সাইফুল্লাহ সিদ্দিকী | প্রকাশের সময় : ৬ নভেম্বর, ২০২০, ১২:১৫ এএম

আল্লাহ তাআলার সৃষ্টিকুলের মধ্যে তাঁর নিকট সবচেয়ে প্রিয় এবং পবিত্র নাম ‘হজরত মোহাম্মদ (সা.)’। তাকে সৃষ্টি করা না হলে আসমান জমিন কিছুই সৃষ্টি করা হতো না বলে খোদ আল্লাহ ঘোষণা করেছেন: ‘লাও লাকা-লামা খালাকতুল আফলাক’। রসূলুল্লাহ (সা.) নিজেও বলেছেন: ‘আউয়্যালু মা খালাকাল্লাহ নূরী।’ অর্থাৎ আল্লাহ তাআলা সর্ব প্রথম আমার নূরই সৃষ্টি করেছেন। সুতরাং, আরশ চত্বরে আল্লাহ তাঁর নামই লিপিবদ্ধ করে রেখেছেন যা সীরাত গ্রন্থগুলোতে বহুল আলোচিত বিষয়। হাকীমুল উম্মত হজরত মওলানা আশরাফ আলী থানভী (রহ.) কৃত ‘নাশরুত তীব ফি জিকরিন্ নবীয়্যিল হাবীব’ এ ক্ষেত্রে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ওই গ্রন্থের তিনটি বর্ণনা নি¤œরূপ:

প্রথম বর্ণনা: আবদুর রাজ্জাক তার সনদের সাথে হজরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ আনসারী (রা.) হতে বর্ণনা করেন: আমি আরজ করলাম যে, আমার পিতা-মাতা আপনার প্রতি উৎসর্গ হোন। আমাকে জানান, সর্বপ্রথম আল্লাহ তাআলা কোন বস্তু সৃষ্টি করেছেন? তিনি বললেন: ‘হে জাবের! সকল বস্তুর মধ্যে আল্লাহ তাআলা তোমার নবীর নূর, তার নূর দ্বারা (নূরের ফয়েজ দ্বারা) সৃষ্টি করেছেন। অতঃপর সে নূর কুদরতে এলাহী দ্বারা যেখানে ইচ্ছা সেখানে ভ্রমণ করতে থাকে। সে সময় লৌহ ছিল না, ছিল না কলম এবং না ছিল বেহেশত এবং ছিল না দোজখ এবং না ছিল ফেরেশতা, না ছিল আসমান এবং না ছিল জমিন এবং না ছিল সূর্য এবং না ছিল মানুষ। অতঃপর আল্লাহ তাআলা যখন মাখলুক সৃষ্টির ইচ্ছা করেন তখন ঐ নূরকে চার ভাগে বিভক্ত করেন। এক ভাগ দ্বারা কলম সৃষ্টি করেন। দ্বিতীয় ভাগ দ্বারা লৌহ সৃষ্টি করেন । এবং তৃতীয় ভাগ দ্বারা আরশ সৃষ্টি করেন (পরবর্তীতে দীর্ঘ হাদীস রয়েছে)।

‘তবুক’ যুদ্ধ হতে মদীনায় প্রর্তাবর্তণের পর হজরত আব্বাস (রা.) আরজ করলেন, ‘হে আল্লাহর রাসূল! আমাকে অনুমতি দান করুন, আমি আপনার কিছু প্রশংসা করতে চাই। (যেহেতু হুজুর (সা.) এর প্রশংসা খোদ এতআত-আনুগত্য) তাই বললেন, ‘বল, আল্লাহ তাআলা তোমার জবানকে নিরাপদ রাখুন।’ অতঃপর হজরত আব্বাস (রা.) হুজুর (সা.)-এর সামনেই একটি প্রশস্তিমূলক কাসীদা পাঠ করেন। কবিতাগুলো শ্রবণ করে হুজুর (সা.) নীরবতা পালন করেন। মীলাদ মাহফিলগুলোতে হুজুর (সা.)-এর শানে প্রশস্তিমূলক কবিতা, নাত পাঠ করার তাৎপর্য এ ঘটনা হতে স্পষ্ট হয়ে উঠে।

দ্বিতীয় বর্ণনা: হাকেম বর্ণনা করেছেন: হজরত আদম (আ.) মোহাম্মদ (সা.)-এর পবিত্র নাম আরশে লিখিত দেখেন এবং আল্লাহ তাআলা আদম (আ.)-কে বলেন, ‘যদি মোহাম্মদ (সা.) না হতেন তাহলে তোমাকে সৃষ্টি করতাম না।’ এতে হুজুর (সা.)-এর শ্রেষ্ঠত্ব প্রকাশ করা হয় হজরত আদম (আ.)-এর সামনে।

তৃতীয় বর্ণনা: হজরত ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) হতে বর্ণিত, মহানবী (সা.) বলেছেন: ‘যখন আদম (আ.) ভুলের শিকার হন তখন তিনি আল্লাহর দরবারে আরজ করলেন, ‘হে প্রভু পারওয়ারদিগার আমি মোহাম্মদ (সা.)-এর মাধ্যমে আপনার দরবারে আরজ করছি যে, আমায় ক্ষমা করে দিন।’ তাই আল্লাহ তাআলা এরশাদ করেন, ‘হে আদম! আজ তুমি মোহাম্মদ (সা.)-কে কিভাবে চিনতে পারলে? অথচ এখনো আমি তাকে সৃষ্টি করিনি।’ আদম (আ.) আরজ করলেন, ‘হে প্রভু! আমি (তাঁকে) এইভাবে জেনেছি যে, আপনি যখন আমাকে আপনার হস্ত দ্বারা সৃষ্টি করেছেন এবং আপনার (প্রদত্ত মর্যাদা) আমার মধ্যে রূহ ফুকে দেন, তখন আমি মস্তক উত্তোলন করি। আরশের চৌকাঠে ‘লা ইল্লাহা ইল্লাল্লাহু মোহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ’ লিখিত (কলেমা) দেখতে পাই, তখনই আমি জেনেছি যে, আপনি নিজের পবিত্র নামের সাথে এমন এক ব্যক্তির নাম যুক্ত করেছেন, যিনি সমগ্র সৃষ্টির মধ্যে সবচেয়ে প্রিয় হবেন।’

আল্লাহ তাআলা বলেন: ‘হে আদম! তুমি সত্য বলেছ, বাস্তবতা এই যে, তিনি আমার নিকট সৃষ্টির মধ্যে সবচেয়ে প্রিয় এবং তুমি যখন তার মাধ্যমে আমার নিকট দরখাস্ত করেছ, আমি তোমাকে ক্ষমা করে দিয়েছি। আর যদি মোহাম্মদ (সা.) না হতেন, আমি তোমাকেও পয়দা করতাম না।’ বায়হাকী, হাকেম, তিবরানিতে এতটুকু অতিরিক্ত বলা হয়েছে যে, আল্লাহ তাআলা বলেন: ‘তোমার বংশধরগণের মধ্যে সকল নবীর মাঝে তিনি সর্বশেষ নবী’। (নশরুত-তীব)

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
মোঃ তোফায়েল হোসেন ৬ নভেম্বর, ২০২০, ৬:৪১ এএম says : 0
দুনিয়ার সর্বকালের সেরা মানুষ হিসেবে নন্দিত যিনি, তিনি হলেন আখেরি নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম।
Total Reply(0)
কাজী হাফিজ ৬ নভেম্বর, ২০২০, ৬:৪১ এএম says : 0
তিনি ছিলেন সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী। তার পর আর কারও কাছে আল্লাহর ওহি নাজিল হবে না। আল্লাহ রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দীনকে কিয়ামতের আগ পর্যন্ত কায়েম রাখবেন।
Total Reply(0)
জোহেব শাহরিয়ার ৬ নভেম্বর, ২০২০, ৬:৪২ এএম says : 0
রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ছিলেন জীবনের সর্বক্ষেত্রে অনুকরণীয়। তিনি ছিলেন সবচেয়ে বেশি সৎ, সবচেয়ে বেশি দায়িত্বশীল, সবচেয়ে বেশি সাহসী। সবচেয়ে বেশি দয়ালু। দাতা হিসেবেও তিনি ছিলেন সর্বোত্তম। আল্লাহ আমাদের সবাইকে প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সর্বক্ষেত্রে অনুসরণের তাওফিক দান করুন।
Total Reply(0)
কামাল ৬ নভেম্বর, ২০২০, ৬:৪৪ এএম says : 0
পার্থিব জীবনে মহনবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর শিক্ষা সমগ্র মানব জাতির জন্য অনুসরণীয়।
Total Reply(0)
জুয়েল মিয়া ৬ নভেম্বর, ২০২০, ৬:৪৪ এএম says : 0
মহান আল্লাহ তা’আলা হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-কে ‘রহমাতুল্লিল আলামীন’ তথা সমগ্র বিশ্বজগতের রহমত হিসেবে প্রেরণ করেন। দুনিয়ায় তাঁর আগমন ঘটেছিল ‘সিরাজুম মূনিরা’ তথা আলোকোজ্জ্বল প্রদীপরূপে।
Total Reply(0)
কামাল রাহী ৬ নভেম্বর, ২০২০, ৬:৪৫ এএম says : 0
মহানবী (সাঃ)-এর জীবনাদর্শ আমাদের সকলের জীবনকে আলোকিত করুক, আমাদের চলার পথের পাথেয় হোক, মহান আল্লাহর কাছে এ প্রার্থনা করি। মহান আল্লাহ আমাদেরকে মহানবী (সাঃ)-এর সুমহান আদর্শ যথাযথভাবে অনুসরণের মাধ্যমে দেশ, জাতি ও মানবতার কল্যাণে কাজ করার তৌফিক দিন
Total Reply(0)
Alam Khan ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১:৩১ এএম says : 0
সর্বসম্মতভাবে জাল হাদিস
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন