সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

দেড়শ’র পঞ্চমে ধ্রুপদী মুশফিক

ইমরান মাহমুদ | প্রকাশের সময় : ২৫ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

এক ধ্বংসস্ত‚পে দাঁড়িয়ে লড়াইরে শুরু। যোগ্য সঙ্গ পেয়েছিলে লিটন দাসের। দায়িত্বশীল কাঁধে শেষ অবধি দলকে তুলে টেনেছেন খাদের কিনারা থেকে। লিটনের সঙ্গে করেছেন বিশ্বরেকর্ডগড়া এক মাহাকাব্যিক জুটি। সেঞ্চুরিয়ান লিটনকে হারিয়েও দমে যাননি। ধ্রæপদী সব শটে টেলএন্ডারদের নিয়ে দলকে দিয়েছেন শক্ত ভিত। নিজের পছন্দে সুইপ আর রিভার্স সুইপও ছিল, তবে এবার আর তাকে আউটই করতে পারেনি লঙ্কানরা। শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করে মাঠ ছেড়েছেন কিছুটা ‘আক্ষেপ’ নিয়ে মুশফিকুর রহিম। তবে তার আগেই নামের পাশে যে জ্বলজ্বলে ১৭৫! ধ্রæপদী এই ইনিংসে আরেকটি মাইলফলক ছুঁয়েছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল।
শ্রীলঙ্কার অফ স্পিনার রমেশ মেন্ডিসের বল ফাইন লেগে ঠেলে দিলেন মুশফিক। দ্রæত দৌড়ে নিলেন ডাবল। তাতেই মাইলফলক পূরণ হয়ে গেল এই অভিজ্ঞ ব্যাটারের। টেস্ট ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরিতে এটি মুশফিকের পঞ্চম দেড়শ ছাড়ানো ইনিংস। দ্রæত ২ উইকেট পড়ার পর তার পাল্টা আক্রমণে বাড়ছে বাংলাদেশের সংগ্রহ। গতকাল মিরপুর টেস্টের দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে দেড়শতে পৌঁছান মুশফিক।
আগের দিন মুশফিক হাফসেঞ্চুরিতে পৌঁছেছিলেন ১১২ বলে, সেঞ্চুরি ছুঁয়েছিলেন ২১৮ বলে। এদিন মুখোমুখি হওয়া ২৯১তম বলে দেড়শ স্পর্শ করেন তিনি। ইনিংসের শুরুতে ২৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশকে পথে ফেরাতে লিটনকে নিয়ে বিশাল এক জুটি গড়েন তিনি।
শুরুর মহাবিপর্যয়ের পর প্রতিরোধ গড়ে মুশফিক ও লিটনের অসাধারণ জুটি থামে ২৭২ রানে। টেস্টে বাংলাদেশের পক্ষে এটি যে কোনো উইকেটে তৃতীয় সর্বোচ্চ রানের জুটি, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বোচ্চ। ৩৫৯ রানের জুটি নিয়ে তালিকার সবার উপরে থাকা জুটিতেও রয়েছে মুশফিকের নাম। ২০১৭ সালে ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওই জুটিতে তার সঙ্গী ছিলেন সাকিব আল হাসান।
সকালে লিটন ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বিদায়ের পর তিনিই বাংলাদেশের কাÐারি হয়ে ছিলেন। তুলনামূলক দ্রæতগতিতে রান তুলছেন। প্রথম ইনিংসে চারশ ছোঁয়া সংগ্রহ পেতে পারতো দল, নিজেও পেতে পারতেন আরেকটি ডাবলের স্বাদ। তবে শেষ দিকে সঙ্গীর অভাবে আর হয়ে ওঠেনি।
তবে টেস্ট বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের মালিক মুশফিকই। ২০১৮ সালে এই মাঠেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অপরাজিত ২১৯ রান করেছিলেন তিনি। তার আরও দুটি ডাবল সেঞ্চুরি রয়েছে। একটিতে প্রতিপক্ষ ছিল জিম্বাবুয়ে, আরেকটি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এছাড়া, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৫৯ রানের একটি ইনিংসও আছে তার।
২০০৫ সালে টেস্ট অভিষিক্ত মুশফিক প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন ২০১০ সাল চট্টগ্রামে ভারতের বিপক্ষে। ২০১৩ সালে গল টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি পাওয়ার আগে প্রথম ৩০ টেস্টে মুশফিকের একমাত্র সেঞ্চুরি হয়ে ছিল চট্টগ্রামের সেই ইনিংস। গলে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি পাওয়ার পর মুশফিক সেঞ্চুরি পেয়েছেন আরও সাতটি, এর চারটিই আবার ১৫০ ছাড়ানো। টেস্ট ক্যারিয়ারের পাঁচটি ১৫০ ছাড়ানো ইনিংসের তিনটিকেই আবার ডাবল সেঞ্চুরি বানিয়েছেন টেস্টে বাংলাদেশের সবচেয়ে অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান। গলের শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঠিক ২০০ রানের সেই ইনিংসের পর মুশফিক আবার ১৫০ পেরোন ২০১৭ সালে ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। সাকিবের সঙ্গে ৩৫৯ রানের জুটি গড়া মুশফিক করেন ১৫৯।
২০১৮ সালে মিরপুরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ইনিংসটা খেলে ২১৯ রানে অপরাজিত থাকা মুশফিক পরের সেঞ্চুরিটাকেও ‘ডাবল’ বানিয়ে ফেলেন। করোনার আগে খেলা বাংলাদেশের সর্বশেষ টেস্টে সেই মিরপুরেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০৩ রান অপরাজিত ছিলেন তিনি। এরপর চলমান মিরপুর টেস্টের অপরাজিত ১৭৫। টেস্টে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তিনটি ১৫০ ছাড়ানো ইনিংস মুমিনুল হকের। এ ছাড়া একাধিক ‘১৫০’ আছে মোহাম্মদ আশরাফুল ও তামিম ইকবালের।
টেস্ট ইতিহাসে পাঁচ বা এর বেশি ১৫০ ছাড়ানো ইনিংস আছে ৭৭ ব্যাটসম্যানের। মুশফিকসহ তাঁদের ১৭ জনের ঠিক পাঁচটি করে ১৫০ ছাড়ানো ইনিংস। ১৫০ ছাড়ানো ইনিংসে সবচেয়ে বেশি ভারতের শচীন টেন্ডুলকারের। সবচেয়ে বেশি ৫১টি টেস্ট সেঞ্চুরির মালিক ২০ বার ছাড়িয়েছেন বা ছুঁয়েছেন ১৫০। ১৯টি করে ১৫০ রানের ইনিংস নিয়ে দুইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারা ও শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারার। সর্বকালে সেরা ব্যাটসম্যান স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের ১৫০ আছে ১৮টি।

মুশফিকের ১৫০ ছাড়ানো ইনিংস
স্কোর বিপক্ষ ভেন্যু সাল
২০০ শ্রীলঙ্কা গল ২০১৩
১৫৯ নিউজিল্যান্ড ওয়েলিংটন ২০১৭
২১৯* জিম্বাবুয়ে মিরপুর ২০১৮
২০৩* জিম্বাবুয়ে মিরপুর ২০২০
১৭৫* শ্রীলঙ্কা মিরপুর ২০২২

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps